শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়টি বিবেচনায় নেয়ার তাগিদ বিশেষজ্ঞদের

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়টি বিবেচনায় নেয়ার তাগিদ বিশেষজ্ঞদের
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়টি বিবেচনায় নেয়ার তাগিদ বিশেষজ্ঞদের  © ফাইল ছবি

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির মুখে চলতি বছরের এপ্রিল মাসের পাঁচ তারিখ থেকে চলছে লকডাউন বা চলাচলে কঠোর বিধি নিষেধ। সর্বশেষ ১৬ জুনও লকডাউনের মেয়াদ আরো একমাস বাড়ানো হয়েছে।

কিন্তু লকডাউন স্বত্ত্বেও দেশে অফিস, দোকানপাট এবং গণপরিবহন খোলা রয়েছে। অনেক অভিভাবকের প্রশ্ন সব খোলা রেখে কেবল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেন বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

দেশে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে, অর্থাৎ ১৫ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে দেশের সব পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সকলেরই আক্রান্ত হবার ঝুঁকি রয়েছে, কিন্তু শিক্ষা খাতের স্থবির অবস্থা দূর করা জন্য এখন ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

পাবলিক হেলথ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের চেয়ারপার্সন ডা. শারমিন ইয়াসমিন বলছেন, শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি কমানোর জন্য নানা ধরণের ব্যবস্থা নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার কথা বিবেচনা করা দরকার সরকারের।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের বয়স বিবেচনা করে তাদের ভ্যাকসিন দেয়ার মাধ্যমে ঝুঁকি কমানোসহ নানা ধরণের ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। বাচ্চাদের বেলায় যদি কোভিড হয়েও থাকে, তাদের কোমরবিডিটি থাকলে ঝুঁকিটা বেশি থাকে। কিন্তু আরেকটু বেশি বয়স যাদের, ভ্যাকসিনের কাভারেজে ১২ বছরের বেশি বয়সের ছেলেমেয়েদের যদি নিয়ে আসা যায় তাহলে সংক্রমণ হলেও তাদের ঝুঁকি কম থাকবে।

পড়ুন: অনিশ্চয়তায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা

এই জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ মনে করেন, দেশের অন্য সব প্রতিষ্ঠানের মত এখন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়টিও সরকারকে শক্ত বিবেচনায় নিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অর্থনীতি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান বলেছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেওয়ার বিষয়টি ভেবে দেখা দরকার।

একই মত দিয়েছেন অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদও। তিনি বলেছেন, করোনায় শিক্ষা খাতে বড় ধরনের বৈষম্য তৈরি হয়েছে। ক্রম বা রোটেশন করে কিংবা গ্রুপ করে হলেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া উচিত।

বাংলাদেশে এই মূহুর্তে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছুটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত ঘোষণা করা আছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে কওমি মাদ্রাসাসহ সব ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকবে বলে জানানো হয়েছে। কিন্তু লকডাউন ১৫ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানোর কারণে ধারণা করা হচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ছুটিও বাড়বে।


মন্তব্য