ড্রামে প্রবাসীর লাশ, গ্রেফতার ১

রশিতে বেধে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয় সাবিনাকে

মৃত্যু
পুলিশ ভ্যানে নিহতের লাশ ও উদ্ধারকৃত ড্রাম  © টিডিসি ফটো

বরিশালে প্রবাসীর স্ত্রীকে হত্যার পর লাশ ড্রামে ভরে গুম করার ঘটনায় এক নারীকে গ্রেফতার করেছে গৌরনদী থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃত নারীর নাম রহিমা বেগম। তিনি ওই উপজেলার ডিমলা গ্রামের আব্দুল খালেকের স্ত্রী। যে খালেক বিদেশ যাওয়ার জন্য নিহত সাবিনার স্বামীকে চার লাখ টাকা দিয়েছিলেন। কিন্তু খালেক বিদেশ যেতে অসম্মতি জানালে তার প্রদত্ত টাকা ফেরত দিতে এসেছিল নিহত সাবিনা।

পুলিশ জানিয়েছে, সাবিনার শ্বশুর বাড়ি গৌরনদী উপজেলার দিয়াসুর গ্রামে। কিন্তু সাবিনা তার দুই সন্তান নিয়ে নারায়নগঞ্জের ফতুল্লায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতো। শুক্রবার (২০ নভেম্বর) টাকা ফেরত দিতে গৌরনদীতে দুই সন্তান নিয়ে আসেন সাবিনা। ওইদিন সকাল ১০টার দিকে তার দুই সন্তানকে শ্বাশুড়ির কাছে রেখে বরিশালে আসেন। বরিশাল নগরীর কাশিপুরের ভূঁইয়া বাড়ি এলাকার নির্মানাধীন একটি বাড়িতে ডেকে এনে পরিকল্পতিভাবে ঠান্ডা মাথায় খুন করা হয় তাকে। হত্যাকান্ডে ব্যবহার করা হয় হাতুড়ি ও রশি।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, রশি দিয়ে বেধে হাতুড়িপেটা করে নৃশংসভাবে হত্যাকরা হয় দুই সন্তানের জননী সাবিনা আক্তারকে।

গৌরনদী থানার ওসি আফজাল হােসেন জানিয়েছেন, রহিমা বেগম নামে একজনকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করা হয়েছে। কখন এবং কোথা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে তা জানাননি ওসি। তিনি আজ বিকেলে (২২ নভেম্বর) জানিয়েছেন, গ্রেফতারকৃত নারী হত্যায় অংশ নেওয়া সন্দেহভাজন যুবক আব্দুল খালেকের স্ত্রী। আমরা রহস্য উন্মোচনের দ্বারপ্রান্তে। আশা করি অল্প সময়ের মধ্যে অপরাধীদের আইনের আশ্রয়ে নিয়ে আসতে পারবো।

প্রসঙ্গত, ভুরঘাটা বাসস্ট্যান্ডে শুক্রবার রাত ৮টার দিকে একটি লোকাল বাসের ছাদে থাকা ড্রমের ভেতর থেকে প্রবাসীর স্ত্রী সাবিনা আক্তারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশভর্তি ড্রামটি বরিশালের গড়িয়ারপার নাম স্থান থেকে দুই যুবক ২৩০ টাকা ভাড়া চুক্তিতে ভুরঘাটা তুলে দেন। পাঞ্জাবী পরিহিত একনজ এবং তার সহযোগীও বাসের ইঞ্জিন কভারে করে ভুরঘাটা যান। সেখানে নেমে তারা ড্রামটি রেখে পালিয়ে যান।

সুরতহাল রিপোর্টে নিহত সাবিনার মাথায় ও শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। ##


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ