পাশে বসা ভর্তিচ্ছু ছাত্রের চিরকুট— ‘তোমার চোখ অনেক সুন্দর’

পরীক্ষার হল
প্রতীকী ছবি  © ফাইল ছবি

২০১৯ সালের শেষের দিকে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে গিয়েছিলাম। আমার সিট পড়েছিল একাডেমিক বিল্ডিং ‘ডি’-তে। পরীক্ষার হলে প্রবেশ করে দেখি সেখানে কোনো টেবিল নেই। সবগুলো চেয়ার সিস্টেম টেবিল। আমার সামনে একটা ছেলে বসেছিল। সে সম্ভবত ঢাকা থেকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে এসেছিল। 

ছেলেটাকে প্রথম দেখায় আমার কিছুটা ‘টাউট’ মনে হয়েছিল। তার হাতে ছিল ঘড়ি, ব্রেসলেট এবং ফিতা। যথা সমেয়ে পরীক্ষা শুরু হয়ে শেষ হয়ে গেল। পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরও আমাদের রুমে বসে থাকতে হয়েছিল। কারণ পরীক্ষার হলে দায়িত্বরত ম্যাম বলেছিলেন— সবার খাতা নেওয়া শেষ হলে হল থেকে বের হতে দেবে।

শাবিপ্রবিতে প্রশ্নের উত্তর লেখার জন্য আলাদা পেপার নেওয়া যেত। তবে এর জন্য দায়িত্বরত শিক্ষকের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হত। আমার সামনে যে ছেলেটা বসেছিল সে ম্যামের কাছ থেকে একটা পেপার নিয়েছিল। পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর হঠাৎ ছেলেটা আমার বেঞ্চের উপরে একটা কাগজ মুড়িয়ে আমাকে দেয়। ওই ছেলের এমন কান্ডে আমি অবাক? কাগজটা খুলে পড়লাম। দেখলাম সে লিখেছে, ‘‘তোমার চোখ অনেক সুন্দর।’’

আরও পড়ুন: উপ-উপাচার্য নেই ৭৭ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে

তার এমন চিঠিতে আমি শুধু অবাক হয়ে হাসছি। মনে মনে ভাবছি একজন ক্যান্ডিডেটের মাথায় পরীক্ষার হলে কীভাবে এসব চিন্তা আসে! যাই হোক বিষয়টি তখন হেসে উড়িয়ে দিয়েছিলাম। বিষয়টি তিখন উড়িয়ে দিলেও এখনও যখন বিভিন্ন পরীক্ষার হলে যাই তখন ছেলেটির কথা আমার মনে পড়ে।

ছেলেটা একটা পাগল; তার কথা মনে হলেই হাসি পায়। আবার ইচ্ছে হয় তার সাথে পরিচিত হওয়ার। যখন ছেলেটি আমাকে চিঠি দিয়েছিল তখন আমি তার সাথে কোন কথা বলিনি। চুপ করে ছিলাম। 
তাকে এখন আসলে মিস করি। মাঝে মাঝে মনে হলে একলাই হাসি।

আমাদের জীবনে এমন অনেক মানুষের সাথে দেখা হয় কয়েক সেকেন্ডের জন্য; কিন্তু তারা সারা জীবন মনে রয়ে যায়। যেমন এই ছেলেটাকে মনে রয়েছে আমার।

লেখক: নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী


x

সর্বশেষ সংবাদ