২৩ সেপ্টেম্বর দিন-রাত সমান কেন?

২৩ সেপ্টেম্বর দিন-রাত সমান কেন?
আজকের রাতটি তার দিনের সমান  © সংগৃহীত

আজকের রাতটি তার দিনের সমান। অর্থাৎ আজকে পৃথিবীর সব জায়গায় দিন-রাত্রি সমান। আসলে পৃথিবীর সব জায়গায় সবসময় দিন-রাত সমান হয় না। আমাদের দেশে তথা উত্তর গোলার্ধে শীতকালে দিন খুব ছোট হয়ে যায় এবং রাত খুব বড় হয়ে থাকে। অন্যদিকে আমাদের বিপরীত গোলার্ধে থাকা আমেরিকা এবং তার আশে-পাশের দেশগুলোতে দিনগুলো হয় বড় এবং রাত হয় খুব ছোট।

সূর্য আমাদের থেকে প্রায় ১৫ কোটি কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। আর এ ১৫ কোটি কিলোমিটার দূরে অবস্থান করে পৃথিবী একটি নির্দিষ্ট কক্ষপথে সূর্যের চারদিকে ঘুরে। পৃথিবী নিজের অক্ষের ওপর ২৪ ঘন্টায় একবার পদক্ষিণ করছে লাটিমের মতো।

এটাকে বলা হয় আহ্নিক গতি, যার ফলে দিন-রাত্রি সংঘটিত হয়। এভাবে আহ্নিক গতির ধারাবাহিতকায় পৃথিবী বছরে সূর্যকে একবার প্রদক্ষিণ করে আসে, যেটাকে বলা হয় বার্ষিক গতি।

আবর্তন গতির জন্য পৃথিবীর যে অংশ যখন সূর্যের দিকে ঝুঁকে থাকে, তখন সেখানে সূর্যের আলো পড়ে বলে সে অংশে হয় দিন এবং তার বিপরীত অংশে সূর্যের আলো পড়ে না বলে তখন সেখানে রাত হয়।

সূর্যের চারিদিকে পরিক্রমণ করতে করতে পৃথিবী তার কক্ষপথের বিভিন্ন স্থানে ৬৬১/২ ডিগ্রি কোণে হেলে এমনভাবে অবস্থান করে যে সূর্যের আলো কোথাও লম্বভাবে, আবার কোথাও বা তির্যকভাবে পতিত হয়। এর ফলে বছরের বিভিন্ন সময়ে পৃথিবীর বিভিন্ন অংশে দিন রাত্রির দৈর্ঘ্যের হ্রাস বৃদ্ধি ঘটে।

২৩ সেপ্টেম্বর এবং ২১ মার্চ নিরক্ষরেখার উপর সূর্য লম্বভাবে কিরণ দেয় বলে বছরের ওই দুই দিন পৃথিবীর উভয় গোলার্ধ সূর্য থেকে সমান দূরত্বে অবস্থান করে। এ সময় সূর্যকে প্রদক্ষিণ করতে গিয়ে পৃথিবীর উভয় গোলার্ধই সমান আলো পায় বলে সর্বত্র দিন রাত সমান হয়। সে হিসেবে আজকের রাতটি আজকের দিনের দৈর্ঘের সমান এবং ২১ মার্চ দিবা-রাত্রিও।

লেখক: সিনিয়র শিক্ষক, রায়পুর সরকারি মার্চ্চেন্টস একাডেমি


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ