শিক্ষক: আমাদের গর্ব ও আমাদের লজ্জা

লেখক কাবিল সাদি
লেখক কাবিল সাদি

‘শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড’ কথাটি আমাদের খুব ছোট থেকেই শেখানো হয় আর সেই মেরুদন্ডের ভীত যেন শক্ত হয় সেই কাজটিই করে থাকেন শিক্ষক নামের মহান পেশার ব্যক্তিগন। যে কথাটি আজ পর্যন্ত শিক্ষকদের মর্যাদা বুঝাতে যথেষ্ট মনে হয়েছে তা হলো ‘শিক্ষকরা জাতি গড়ার কারিগর’। এই কথাটি এত বেশি মাত্রায় প্রচলিত যে এর মাধ্যমে শুধু তাদের দায়িত্বকেই না বরং শ্রদ্ধাকেও শতগুণ বৃদ্ধিতে অন্যতম ভুমিকা রেখেছে।

একটা সময় ছিল সবচেয়ে ভাল পরিবার বা ভাল মানুষের সারিতে প্রথম যে নামটা উঠে আসতো তা ছিল যথাক্রমে শিক্ষক বা শিক্ষক পরিবার। কখনো কখনো ‘মাস্টার সাহেবের বাড়ি’ বা ‘মাস্টার পাড়া’ এলাকা বা গ্রাম মহল্লাকে আলাদা ইতিবাচক পরিচিতি দিয়েছে। বংশ মর্যাদা ও ভাল মানুষের মানদন্ডের বিচারে শিক্ষক শ্রেণি ছিল সর্বাগ্রে। এমন কি বিয়ের কনে বা বর পছন্দ তথা নতুন আত্নীয় তৈরিতে প্রাধান্য দেয়া হতো বা এখনও দেয়া হয় শিক্ষক পরিবারকেই।

সময়ের পরিক্রমায় সেই শিক্ষক পদবী বা পেশাটি নানা কারনেই বহুবার কলঙ্কিত হয়েছে এবং দু:খজনক হলেও সত্য যে এই পরিস্থিতি দিন দিন তাদের আশানুরূপ মর্যাদাকে তলানীতে ঠেকানোর উপক্রম করেছে।তবে এটাও ঠিক অবশ্যই তা সাধারণীকরণ করার মতো পর্যায়ে এখনও যায়নি তবে হবে একদিন, তারই নানা বিষয় আমাদের সামনে উঠে আসছে।

হাফিজিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষক কর্তৃক অমানবিক ছাত্র নির্যাতন ও বলাৎকার, স্কুল কলেজের ছাত্রী ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানি, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের রাজনীতি চর্চা ও ক্ষমতাসীন সরকারের গোলামি, শিক্ষক ও কর্মচারী/কর্মকর্তা নিয়োগে সীমাহীন দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি, ক্লাসের পরিবর্তে কোচিং ব্যবসায় অধিক মনোযোগীসহ গবেষণা চুরির মতো জঘন্য অপরাধে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষকদের সম্পৃক্ততা সম্প্রতি জাতি গঠনের এই মহান পেশাটি চারিত্রিক স্খলনের সমাজের নিচু স্তরের অপরাধী কাতারে নামিয়েছে।

কতিপয় ব্যক্তির ব্যক্তিগত বা চারিত্রিক উশৃংখলতা ও স্বেচ্ছাচারিতায় জাতির বিবেক কে আতঙ্কগ্রস্ত করে তুলেছে। রক্ষক যেন আজকাল ভক্ষকের ভুমিকায় অবতীর্ণ। কারিগরি শিক্ষাতে চলছে ব্যবহারিক নাম্বার দেয়াকে কেন্দ্র করে নম্বর বাণিজ্য,অভিযোগ আছে তাদের কাছে প্রাইভেট না পড়লে বা বিশেষ শিট না নিলে আশানুরূপ নম্বর পাওয়া যায় না।

স্বায়ত্ত শাসনের অজুহাত দাড় করিয়ে অপেক্ষাকৃত কম মেধাবী ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রনেতা হয়ে যাচ্ছেন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় লাল, নীল, সাদা দলের মোড়কে তাদের কে গবেষণার থেকে রাজনৈতিক চর্চা করতেই অধিক দেখা যায়। এরা শিক্ষক হিসেবে যতটা না নিয়োগ পান তার থেকেও বড় পরিচয় তারা নীল বা সাদা দলের ভোটার হিসেবে নিয়োগ পেয়ে থাকেন।

সম্প্রতি অনেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে যে সকল শিক্ষক নিয়োগ পেয়েছেন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে স্পষ্ট যে শুধু বিভাগের প্রথম হওয়াই শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাওয়া মূল যোগ্যতা নয় বরং রাজনৈতিক পরিচয় অথবা প্রভাবশালী শিক্ষকের আত্নীয় স্বজন কি না সেটাই মুখ্য।

সম্প্রতি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তো বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ম শৃংখলাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রাতারাতি শিক্ষক নিয়োগের নীতিমালা পরিবর্তন করে তার মেয়ে ও জামাতাকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন অযোগ্য সিজিপিএ থাকা সত্ত্বেও। ইতোমধ্যে তার বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতি ও আইন অমান্যের দুর্নীতি দমন কমিশন পঁচিশটি অপরাধের প্রমাণ পেয়েছে। একজন শিক্ষক এর থেকে ক্ষমতাশালী হলে আর কিইবা করতেন বা তার ইচ্ছে ছিল।

এই হলো স্বায়ত্তশাসনের নামে স্বেচ্ছাচারিতার সর্বোচ্চ সৎব্যবহার। অন্যন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলোরও প্রায় একই অবস্থা। ফলাফল, বিভাগে প্রথম হওয়া ছাত্র-ছাত্রীদের বড় একটা অংশ হয় দেশের বাইরে নতুবা ব্যাংক বা বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে চাকুরি খুঁজছেন বিভাগের শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন বিসর্জন দিয়ে। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র তাইফুর রহমানের মতো কোন কোন ক্ষেত্রে তাদের আত্নহত্যা করার ঘটনাও ঘটেছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষায় অন্যান্য প্রার্থী অংশ নিলেও এমদাদুল হক নামের সেই প্রার্থীকে অংশ নিতে দেওয়া হয়নি, যিনি স্নাতকোত্তর ও স্নাতক সম্মান পরীক্ষায় রেকর্ড নম্বর পেয়ে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক লাভ করেছেন। দিনে দুপুরে অপহরণ করে তার শিক্ষক নিয়োগে বাধা দিয়ে অযোগ্য শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়াও সম্পন্ন করেছেন সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আবার কোন কোন ক্ষেত্রে মেধাবী ছাত্রকে প্রথম হওয়া থেকে বঞ্চিত করতে শেষ সেমিস্টারে ফেইল বা সর্বনিম্ন মার্ক্স দেয়ার ঘটনাও রয়েছে। আর এর ফলাফল প্রভাব ফেলে উঠতি বয়সের হাজার স্বপ্ন দেখা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া তরুন মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের উপর। তারাও এতদিনে বুঝে গিয়েছেন শিক্ষক হওয়ার রাস্তা এখন পড়াশোনা বা গবেষণাই মুখ্য নয় বরং হাটতে হবে পেছনের রাস্তাতেও।

ফলে পড়ুয়া, গবেষক মানবিক শিক্ষক আমাদের চোখে পড়ছে না আর অরাজনৈতিক মানবিক যে কয়জন শিক্ষক থাকেন তারাও এদের কারনে দিনের পর দিন কোণঠাসা হয়ে পড়েন যারা তাদের বিভাগ বা বিশ্ববিদ্যালয় নিয়মকানুন বা পড়াশোনার মান উন্নয়নে তেমন ভুমিকা না রেখেই একদিন নিরবে অবসরের পথ ধরেন।

গত দুই দশকে এটাই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের একটি সাধারণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে যখন যে দল রাজনৈতিক ক্ষমতায় এসেছে তাদের ছত্রছায়ায় এসব শিক্ষকে সয়লাব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলো এবং এই প্রক্রিয়া এখনও ভয়ানক ভাবে চলমান। এখানে এভাবে নিয়োগ পাওয়াই শেষ কথা নয় বরং পদন্নোতি, হল প্রভোস্ট বা বিভাগের চেয়ারম্যান নির্বাচনের ক্ষেত্রেও এই ধারা অব্যাহত থাকে,ফলে এখানে এসবের জন্য গবেষণা বা উচ্চ ডিগ্রী ততটা ভুমিকা রাখে না আর যা রাখে তা আমাদের শিক্ষক মহোদয়গন বিদেশি থিসিস বা গবেষণার সিংহভাগ চুরি করে সে শর্ত পূরণ করেন।

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কতিপয় কুম্ভিলক শিক্ষকদের গবেষণাপত্র চুরির সন্ধান পাওয়া গেছে আর তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা বলতে কথিত তদন্ত কমিটি গঠন করা বা সতর্ক করে দেয়াই সর্বোচ্চ শাস্তি অবশ্য রাজনৈতিক ভাবে বিপক্ষ দল হলে শাস্তির মাত্রা আপেক্ষিক।

এইভাবে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকগন তাদের রাজনৈতিক প্রভাবে নামে বেনামে বাহারি রকমের নতুন বিভাগ খুলে বসে সেই বিভাগের প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেন। তারা শিক্ষক পরিচয় থেকে নিজেকে সাদা নীল দলের পদাধিকারী বলতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অভিভাবক হিসেবে যে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন নামে যে প্রতিষ্ঠানটি রয়েছে সেই প্রতিষ্ঠানটিকেও অতীতে এ ব্যাপারে কোন বিশেষ ভূমিকা নিতে দেখা যায়নি বরং ‘তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হব’ বক্তব্যেই তাদের সীমাবদ্ধ থাকতে দেখা গেছে।

বিশ্বের অন্য কোথাও শিক্ষকদের মধ্যে এত ‘সাদা-নীল’ নামে রাজনীতি কাজ করে কি না বা করলেও এত প্রখর কি না তা আমার জানা নেই যতটা এদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে অন্যন্য বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজ শিক্ষকদের মধ্যে দেখা যায়। কারও কারও রাজনৈতিক আকাঙ্ক্ষা এত উচ্চমাত্রার যে তা অকল্পনীয়। কিছুদিন আগেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মহোদয় তো সরাসরি বলেই দিলেন যে, যুবলীগের চেয়ারম্যান করা হলে তিনি উপাচার্য পদ ছাড়তেও রাজী। তার এই রাজনৈতিক চাহিদা এদেশের প্রেক্ষাপটে খুব সাধারণ। তার এই মনোবাসনা আজকাল অধিকাংশ শিক্ষকগনই হয়তো পোষণ করেন হয়তো প্রকাশ করেন না, তার বড় কারণ এখানে অবৈধ ক্ষমতা চর্চা প্রখর। তাই যে যে পদেই থাকুন সবারই শেষ ইচ্ছে অন্ততপক্ষে শেষ সময়ে হলেও রাজনৈতিক পদে আসা।

এতক্ষণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলো সম্পর্কে যা বলা হলো এগুলো আমাদের শিক্ষকদের গত দুই দশকে সাধারণ বৈশিষ্ট্য কিন্ত সম্প্রতি দুজন শিক্ষকের কথা স্পষ্ট করে না বললেই নয়, একজন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. নাসরিন যিনি প্রায় তিনশত কিলোমিটার রাস্তা দাড় করিয়ে নিয়েছেন তার গৃহকর্মী এক বাচ্চাকে। এই শিক্ষক ও তার সন্তান আরামে চেয়ারে বসে যেতে পারলেও এই শিশুর জন্য সিট নেয়ার টাকা তিনি আজও উপার্জন করতে পারেন নি। অথচ শিশু শ্রম নিয়ে টকশো তে ডাকলে তিনিই এই শিশুশ্রমের বিরোধিতা করে তার অধ্যাপনা সংশ্লিষ্ট বিভাগের সংবিধান তুলে ধরবেন।

অথচ ব্যক্তি ও বাস্তব জীবনে একজন শিক্ষক থেকে ঐ শিশু বা আগামী প্রজন্ম কী শিখবে, জাতি গঠনের কারিগর হিসেবে তার আদর্শ কতটা নৈতিকতা ধারন করে। তার এই আদর্শের খবর আমরা পড়ছি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের নানা পেইজে ঘুরে। অপরজন যিনি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক এবং অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ড. জিয়া রহমান। বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা ও জ্ঞানচর্চা কতটা তলানীতে তার বড় উদাহরণ এই মহান অধ্যাপকের ভাষাজ্ঞান ও ধর্মজ্ঞানের অজ্ঞতা। যে সাধারণ জ্ঞান একজন সাধারণ মানুষ ধারন করে সেই টুকু জ্ঞান ধারন করার জায়গাটাও তার নেই।

সম্প্রতি এক টেলিভিশন টকশো তে জঙ্গিবাদের সংজ্ঞায়ন করতে গিয়ে ইসলাম ধর্মের সালামের উচ্চারণ ও তার উদ্দেশ্য কে বিকৃত ভাবে ব্যাখ্যা দিয়েছেন। ভাষাজ্ঞানহীতার পরিচয় দিয়ে তিনি অশুদ্ধকে শুদ্ধ এবং শুদ্ধ উচ্চারণ কে অশুদ্ধভাবে উপস্থাপন করে শুধু অজ্ঞতার পরিচয়ই দেননি একই সাথে মুসলিম ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছেন যা সুস্পষ্ট অপরাধ। অধ্যাপক মহোদয় খুব সাধারন ভাবেই একজন অপরাধী হয়ে নিজ বিভাগের বিষয়বস্তু হয়ে এক ইতিহাস সৃষ্টি করলেন যার নজির অন্য বিভাগে হয়তো নেই। সাধারণ মানুষের চোখে তার মত একজন অধ্যাপক কী করে অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান হয়, তিনি কি তাহলে ছাত্রদের অপরাধ করা শিখাচ্ছেন নাকি সমাজের অপরাধ নির্মূল তার পাঠ্যবিষয় তা নিয়ে আমরাও চিন্তিত।

‘আস সালামু আলাইকুম’ আরবি বাক্যের অর্থ আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হোক অথচ তিনি এর বিকৃত রুপ ‘স্লামালেকুম’ কে শুদ্ধ আখ্যা দিয়ে শুদ্ধ উচ্চারণকারীদের জঙ্গি আখ্যা দেয়ার চেষ্টা করলেন। এই বিকৃত উচ্চারণ যে আরবি ভাষায় নেই তা সুনিশ্চিত।তাছাড়া এই কথার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের মতো ধর্মীয় অসাম্প্রদায়িক একটা দেশে বৃহৎ মুসলিম ধর্মানুরাগী ব্যক্তিদের ‘জঙ্গি’ অপবাদ দিয়ে তাদের সুস্পষ্ট ভাবে ধর্মীয় অনুভূতিকে আঘাত করে জঘন্য অপরাধ করেছেন।

এই ধরনের ভাষাজ্ঞানহীন তথা শিক্ষাক্ষেত্রে একজন অযোগ্য ব্যক্তি কিভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হোন সেটাও আবার অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগে তা হয়তো আমার মতো অনেকের কাছেই বোধগম্য নয়। জনগনের ট্যাক্সের টাকায় চলা এই আদর্শের মানুষ গুলি ভুলেই যান
সাধারণ ভাবে তাদের এসকল কর্মকাণ্ড হয়তো অন্যন্য অপরাধীদের মতো সাধারণ মনে হলেও একজন অধ্যাপকের ক্ষেত্রে কোন ভাবেই তা গ্রহণযোগ্য নয়।

এই মহান পেশার ব্যক্তি শুধু ভাষা ও রীতির অপব্যাখ্যাই দেননি বরং সমগ্র শিক্ষকদের সম্মানহানি করে বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া ও যোগ্যতাকে আবারও প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন। কিন্ত দু:খজনক হলেও সত্য যে শিক্ষকদের এই পেশাভিত্তিক উশৃংখলতার জন্য অন্য শিক্ষকদের বিরোধিতা বা এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে পেশাভিত্তিক বা দলীয় অবস্থান নিতে দেখা যায় না। তারা জাতির পথপ্রদর্শক হলেও তাদের সহকর্মীদের বা নিজেদের পথ দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। ফলে দিন দিন এই সংকট বেড়েছে বৈ কমেনি।

এই সংকট নিরসন না হলে জাতি গড়ার কারিগর এই মহান পেশার প্রতি মানুষের যেমন আস্থাহীনতা তৈরী হবে একই সাথে ধ্বংস হবে পুরো জাতি। তাই সময় এসেছে 'শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড' এই মেরুদণ্ড কে শক্তিশালী ও সুস্থ্য রাখতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কে নিরপেক্ষ যোগ্য ব্যক্তি দিয়ে পরিচালনা করা এবং মেধাবী ও যোগ্য শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের(পিএসসি) মতো একটি স্বাধীন বিতর্কহীন স্বচ্ছ প্রতিষ্ঠানের আদলে শুধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার স্বতন্ত্র প্রক্রিয়ার প্রতিষ্ঠান গঠন করা।অন্যদিকে, পেশাভিত্তিক মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখতে অন্যন্য শিক্ষকদের ভুমিকা রাখতে হবে লেখা, বক্তৃতা বা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। ভুলে গেলে চলবে না ভাষা আন্দোলন, ছয়দফা, গন অভ্যুত্থান এবং আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধেও ছাত্রদের সাথে কাদে কাদ মিলিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ভুমিকা ছিল অগ্রভাগে।

এছাড়াও অধ্যাপক শামসোজ্জাহা,স্যার, এ, এফ রহমান, জিসি দেব, হুমায়ুন আজাদ বা সদ্য প্রয়াত আনিসুজ্জামানসহ বরেণ্য বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকগন শুধু একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই নয় তারা বিশ্বের বুকে বাংলাদেশকেই তুলে ধরেছেন তাদের জ্ঞানচর্চার মাধ্যমে। এখনও যদি অধ্যাপক জিয়া রহমানের মতো ব্যক্তিদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রাখা হয় তাহলে হয়তো অল্প দিনেই এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলো একপেশে মেধাহীন ও রাজনৈতিক ভাবে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের দখলে গিয়ে অন্যন্য বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের মতো সাধারণ প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।তখন সে লজ্জা শুধু শিক্ষকগনই নন ক্ষতিগ্রস্ত করবে আমাদের সমাজ ও পুরো জাতিকে।আমাদের গর্বের শিক্ষক সমাজই হবে আমাদের লজ্জার কারন।

লেখক: নাট্যকার ও ব্যাংক কর্মকর্তা। 
(email:[email protected]


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ