টাকার অঙ্কে শিক্ষার বরাদ্দ বাড়লেও মূলত কমেছে

টাকার অঙ্কে শিক্ষার বরাদ্দ বাড়লেও মূলত কমেছে
এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম, অধ্যাপক কাবেরী গায়েন ও অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন।   © সংগৃহীত

২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত শিক্ষা বাজেটে টাকার অঙ্কে বরাদ্দ কিছুটা বাড়লেও জিডিপিসহ সার্বিক হিসাবে তা কমেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, কোভিড জর্জরিত শিক্ষা খাতের জন্য যে বরাদ্দ রাখা হয়েছে তা মহামারির মধ্যে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য যথেষ্ট না। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে যা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য হতে পারে না।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল শিক্ষা খাতের জন্য নতুন অর্থবছরে মোট ৭১ হাজার ৯৫১ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছেন। যা মোট বাজেটের ১১ দশমিক ৯১ শতাংশ এবং জিডিপির ২ দশমিক ০৮ ভাগ।

অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের তুলনায় টাকার অঙ্কে শিক্ষা খাতে বরাদ্দ ৫ হাজার ৫৫১ কোটি টাকা বাড়লেও জিডিপির হিসাবে তা কমেছে।

এ বিষয়ে একটি জাতীয় দৈনিক কথা বলেছে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সদ্য বিদায়ী চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাবেরী গায়েনের সঙ্গে।

এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘বরাদ্দ তো কমেছেই। খালি অ্যাবসোলিউট অ্যামাউন্ট দেখলেই তো হবে না। রিলেটেডলি তা জিডিপির কোথায় যাচ্ছে সেটাও দেখতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে শিক্ষা, স্বাস্থ্য এ সমস্ত খাতে আনুপাতিক হিসাবে বরাদ্দ এমনিতেই কম। আর বর্তমান পরিস্থিতিতে তো শিক্ষা খাতে ব্যয় বাড়ানোর প্রয়োজন আছে। তাই এটা ঠিক সমর্থনযোগ্য না।’

অধ্যাপক কামরুল হাসান মামুন বলেন, ‘বাজেটে শিক্ষাখাতে বরাদ্দ পরিমাণগতভাবে কিছুটা বেড়েছে। এটাও দেখার বিষয় যে, বাজেটের একটা বড় অংশ চলে যায় শিক্ষকদের বেতনের পেছনে। দেশের নতুন নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষকের সংখ্যাও বেড়েছে। সুতরাং অতিরিক্ত যে বরাদ্দটা দেওয়া হলো তা গুণগত কোনো কাজে আসবে না। এর ওপরে মুদ্রাস্ফীতির মতো বিষয় আছে। এভাবে দেখলে নিশ্চিতভাবেই বলা যায় যে বরাদ্দ কমেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পৃথিবীতে এমন একটা দেশের উদাহরণ পাওয়া যাবে না, যারা জিডিপির ৪ শতাংশের নিচে বরাদ্দ রেখে শিক্ষায় উন্নত হয়েছে। সারা বিশ্বে গবেষণা ও উন্নয়ন নামে আলাদা একটা খাত আছে। যা শিক্ষা খাতের বাইরে। বিশ্বে ১২৫টার মতো দেশ আছে যারা এই খাতে প্রতি বছর অন্তত এক বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে। দেখা গেছে যারা এই খাতে যারা যত বেশি ব্যয় করে, তারা তত বেশি উন্নত। সেই তালিকায় নেপাল আছে। কিন্তু বাংলাদেশ নাই। কারণ এই খাতে আমাদের কোনো বরাদ্দই রাখা হয় না।’

এদিকে অধ্যাপক কাবেরী গায়েনের সঙ্গে আলাপচারিতায় করোনা মহামারির ভেতর ডিজিটাল যন্ত্রের অভাব ও দুর্বল ইন্টারনেট সংযোগের জন্য দূরশিক্ষণ কার্যক্রমের দৈন্যদশার বিষয়টি উঠে আসে। তিনি বলেন, ‘আমরা ক্লাসগুলো অনলাইনে নিচ্ছি। পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলছি। কিন্তু আমাদের এই অবকাঠামোটাই তৈরি হয়নি। আমার অনেক ছেলে-মেয়েকে (শিক্ষার্থীদের) আমি যখন জুমে লিঙ্ক করি, এমনকি আমার গবেষণার শিক্ষার্থীদের, দেখা যায় কেউ মাঠে যাচ্ছে, কেউ বাড়ির ছাদে উঠছে। তারপরেও আমরা তাদের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে পারি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি আমার অনলাইন ক্লাসগুলো নিয়েছি প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ শিক্ষার্থীদের বাইরে রেখে। এই কোভিড পরিস্থিতি কবে ঠিক হবে কেউ জানে না। কাজেই এই ‍মুহূর্তে দরকার ছিল এই ধরনের অবকাঠামোগুলো তৈরি করা। শিক্ষার্থীদের ইক্যুইপড করার জন্য বিশেষ বরাদ্দের ব্যবস্থা করা।’

কাবেরী গায়েন বলেন, ‘অথচ এর কোনোকিছুই হলো না। বরং বরাদ্দ এক অর্থে কমে গেল। আমি এটা কোনোভাবেই সমর্থন করতে পারছি না।’


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ