উপবৃত্তির টাকায় মিনি বিমান তৈরি করল মানবিক বিভাগের এক ছাত্র

করোনা
আকাশে উড়ছে মিনি বিমান   © সংগৃহিত

মিনি বিমান তৈরি করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন মানবিক বিভাগের এক ছাত্র।  হাওরপাড়ের দিনমজুরের ছেলে ঝুটন সম্রাট যিশু গুগল সার্চ করে ও ইউটিউব দেখে নিজের উপবৃত্তির টাকায় তিন ফুট লম্বা ও চার ফুট পাখাবিশিষ্ট বিমানটি তৈরি করেছে। বিমানটি প্রায় এক কিলোমিটার দূরত্বে টানা আধাঘণ্টা আকাশে উড়তে পারে। এটি তৈরি করতে ব্যয় হয়েছে ১১ হাজার টাকা। আর সময় লেগেছে মাত্র ১৫ দিন।  

ঝুটনের পড়াশোনা বিজ্ঞান নিয়ে নয়, সে মানবিক বিভাগের ছাত্র। ২০২০ সালে বিশ্বম্ভরপুর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগে এসএসসি পাস করেন। বর্তমানে তিনি এলাকার দিগেন্দ্র বর্মণ সরকারি ডিগ্রি কলেজের মানবিক বিভাগের দাদশ শ্রেণির ছাত্র।

ককশিট দিয়ে বিমানের মূল বডি তৈরি করেছেন ঝুটন। এছাড়া ট্রান্সমিটার, রিসিভার, লিপো ব্যাটারি, কন্ট্রোলিং করার জন্য চারটি সারভো মোটর, শক্তির জন্য ব্রাসলেস মোটর ও ছোট ফ্যান। একটি রিমোট দিয়ে বিমানটি আকাশে ওড়ানো হচ্ছে।

এরই মধ্যে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার খরচার হাওরপাড়ে উড়েছে বিমানটি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ দৃশ্য ভাইরাল হয়েছে।

সুনামগঞ্জের খরচার হাওরপাড়ের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার প্যারীনগর গ্রামের দরিদ্র শ্রমজীবী পরিবার গোপেন্দ্র চন্দ্র দাস ও গৃহিণী ইলা রানী দাসের তিন সন্তানের মধ্যে ঝুটন সম্রাট যিশু দ্বিতীয়। 

পরিবার সূত্রে জানা যায়, নবম শ্রেণিতে পড়ার সময়ই নানা প্রযুক্তি আবিষ্কার করতেন ঝুটন। নিজের প্রচেষ্টায় একাধিকবার তৈরি করেছেন ড্রোনসহ নানা যন্ত্রপাতি। কিন্তু রক্ষণাবেক্ষণ ও অর্থাভাবে এগুলো বেশিদিন সচল রাখতে পারেননি। এমনকি এসব যন্ত্রপাতি রাখার মতো কোনো নিরাপদ স্থানও নেই তাদের বাড়িতে। উপবৃত্তির টাকাসহ নিজের জমানো প্রায় ১১ হাজার টাকা ব্যয়ে এক মাস আগে তিনি মিনি বিমানটি তৈরি করেন।


সর্বশেষ সংবাদ