শিক্ষার্থীরাই তৈরি করছেন কলেজের কৃষি খামার

কলেজ কৃষি খামার
শিক্ষার্থীরাই তৈরি করছেন কলেজের কৃষি খামার  © সংগৃহীত

সবুজ প্রকৃতির মাধ্যমে কলেজকে ফুটিয়ে তুলতে অসাধারণ এক উদ্যোগ দিয়েছেন পাবনার বেড়া উপজেলার কাশীনাথপুর মহিলা ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ও গবেষক ড. মো. আমিন উদ্দিন মৃধা। নিজ কলেজের শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে মাঠের চারপাশে গড়ে তুলেছেন বাগান। এতে  বাহারি জাতের সবজি ও ফলের গাছও রয়েছে। এগুলোর পরিচর্যা করছেন প্রতিষ্ঠানেরই বর্তমান শিক্ষার্থীরা।

 ‘একজন শিক্ষার্থী একটি সমন্বিত কৃষি খামার’ নামের একটি পাইলট প্রকল্পের মাধ্যমে এটি শুরু করেছেন আমিন উদ্দিন। ইতিমধ্যে তার এই প্রকল্পটি  শিক্ষা মন্ত্রণালয়ও গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। গবেষক ড. মো. আমিন উদ্দিন মৃধা এখন ‘বঙ্গবন্ধু কৃষি বাংলা মডেল’ নামে এটিকে সারাদেশের সব পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাস্তবায়নের স্বপ্ন দেখছেন। এতে কৃষিতে যুগান্তকারী সাফল্য আসবে বলে মনে করেন তিনি।

গবেষক আমিন উদ্দিন বলেন, তিনি তার প্রকল্পে সফল হয়েছেন। গত জুন মাসে তিনি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সঙ্গে এ ব্যাপারে দীর্ঘ বৈঠক করেন। বৈঠকে প্রকল্পটি সম্পর্কে মন্ত্রীকে ধারণা দেন। মন্ত্রীও বিষয়টি জেনে তার সদিচ্ছা ও সহযোগিতার কথা জানিয়েছেন। এরই মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তর থেকে পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য এ ব্যাপারে একটি পত্রও ইস্যু করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃক রাস্তার পাশে এবং রেললাইনের কাছের জায়গাও এ প্রকল্পে কাজে লাগানো যেতে পারে বলে মনে করেন গবেষক আমিন উদ্দিন। তার মতে, শিক্ষার্থী ও গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর সহযোগিতায় হাজার হাজার মসজিদ এবং অন্যান্য প্রার্থনা স্থানের ছাদকে ফলগাছের ছাদ হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, সারাদেশে দুর্গম জায়গায় ক্ষেত-খামারে কৃষিকাজ করতে গিয়ে প্রতিনিয়ত প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবলে পড়েন কৃষক। বজ্রপাতজনিত মৃত্যু বৃদ্ধির মূল কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে তালগাছ এবং খেজুর গাছের ঘাটতি। তালগাছ বজ্রপাত থেকে কৃষকদের রক্ষা করে। তাই তালগাছ রোপণ করতে শিক্ষার্থী, শিক্ষার্থীদের অভিভাবক, কৃষক এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সহায়তা নেওয়া গেলে লাখ লাখ তালগাছ রোপণ করা সম্ভব হবে। আমিন উদ্দিন বলেন, ‘কৃষকের ছাউনি’ খুব দরকারি। আর এ ছাউনি হতে পারে তালগাছ বলেও এসময় মন্তব্য করেন তিনি।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ