গান বন্ধে হুমকির পর প্রধান শিক্ষককে মারধর, অগ্রগতি নেই তদন্তে

গান বন্ধে হুমকির পর প্রধান শিক্ষককে মারধর, অগ্রগতি নেই তদন্তে
সেই কথিত ইসলামী সংগঠনের দেয়া চিঠি  © টিডিসি ফটো

এক স্কুলের প্রধান শিক্ষককে নামসর্বস্ব এক ইসলামি সংগঠনের নামে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চিঠি দেওয়ার দুই দিনের মাথায় তাকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলায় এ ঘটনার পর এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও ব্যবস্থা গ্রহণে কোনো অগ্রগতির নেই।

পুলিশ বলছে, অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত চলছে। আর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কর্মস্থলের বাইরে রয়েছেন, ফিরে এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নেবেন।

ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে ঘোড়াঘাটের জয়রামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বলেন, গত ৪ নভেম্বর স্কুলে তার অফিস কক্ষের মেঝেতে পড়ে থাকা একটি চিঠি পান।

ওই চিঠিতে লেখা ছিল ‘গান বাজনা করা যাবে না, ইসলামে এটা নিষিদ্ধ। অমান্য করলে হত্যা করা হবে।’

প্রধান শিক্ষক ওই দিনই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে লিখিতভাবে বিষয়টি জানান এবং পরদিন ৫ নভেম্বর ঘোড়াঘাট থানায় একটি জিডি করেন।

এরপর ৬ নভেম্বর শুক্রবার শফিকুল ইসলাম তার অফিস কক্ষে কাজ করার সময় তিনজন লোক সেখানে হঠাৎ ঢুকে বলতে থাকে, ‘চিঠি পাওয়ার পরও কেন স্কুলে গান-বাজনার আয়োজন চলছে বলে জিজ্ঞেস করা হয় তাকে। এ সময় তাকে চড়-থাপ্পড় মেরে চলে যায় বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ বিষয়ে ঘোড়াঘাট থানার ওসি আজিম উদ্দিন বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং প্রধান শিক্ষকের জিডির অভিযোগ নিয়ে তদন্ত চলছে।

ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাফিউল আলম বলেন, তিনি অভিযোগ পেয়ে প্রধান শিক্ষককে থানায় অভিযোগ দেওয়ার পরামর্শ দেন এবং নিজেও পুলিশকে বিষয়টি মৌখিকভাবে জানান।

এ ঘটনার পর থেকে তিনি কর্মস্থলের বাইরে রয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, কর্মস্থলে ফিরে এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নিতে পারবেন।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ