মস্তিষ্কবিধ্বংসী এই সাত অভ্যাসের কথা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেনি

টেকনো ড্রাগস
টেকনো ড্রাগস লিমিটেডের পোস্ট  © স্ক্রিনশট

জাতিসংঘের স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রতিষ্ঠান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বরাত দিয়ে  কদিন বাদে বাদেই ‘মস্তিষ্কবিধ্বংসী সাতটি অভ্যাস’ শিরোনামের একটি পোস্টের দেখা মিলছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এগুলোতে দাবি করা হয়েছে, এই সাতটি কাজ অভ্যাসে পরিণত হয়লে মস্তিষ্কের ক্ষতি হবে। এসব অভ্যাসের মধ্যে রয়েছে সকালের নাস্তা না খাওয়া, রাতে দেরি করে ঘুমানো, অতিরিক্ত চিনি খাওয়া, সকালে বেশি ঘুমানো, টিভি/কম্পিউটার ব্যবহারের সময় খাওয়া, রাতে ঘুমানোর সময় মাথায় ওড়না পরা, পায়ে মোজা পরা  এবং প্রশ্রাবের চাপ এলে তা সময় মতোন না করা।

গত বছরের ২৭ মে ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলি সান’ অনলাইনে ‘সেভেন ব্রেইন ড্যামেজিং হ্যাবিটস মাস্ট স্টপ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিটিকে সংযুক্ত করে মস্তিষ্ককে কর্মক্ষম রাখতে উপরে উল্লেখিত সাতটি অভ্যাস পরিহার করতে বলা হয়। সেখানে সূত্র হিসেবে উল্লেখ করা হয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কথা।

এ ছাড়াও ‘সেভেন ব্রেইন ড্যামেজিং হ্যাবিটস টু স্টপ ইমিডিয়েটলি’ শিরোনামে দ্য অল্টারনেটিভ ডেইলি  নামে অপর একটি ওয়েবসাইটে একটি লেখা রয়েছে। তারিখবিহীন লেখাটির নিচে দ্য অল্টারনেটিভ ডেইলির সাংবাদিক লিভি হেস নামটি লেখা রয়েছে। সেখানে অভ্যাসগুলোর কাছাকাছি বক্তব্য রয়েছে। পরামর্শগুলো ডব্লিউএইচও দিয়েছে এমন দাবি করেননি লিভি হেস।

বাংলাদেশের টেকনো ড্রাগস লিমিটেড নামের একটি ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানির ফেসবুক পেজে গত বছরের ২৯ মে ‘সেভেন বিগেস্ট ব্রেইন ড্যামেজিং হ্যাবিটস’ শিরোনামে একটি চিত্র পোস্ট করা হয়। চিত্রটির নিচের অংশে ডব্লিউএইচওর নাম সংবলিত লোগো দেওয়া রয়েছে। পোস্ট ক্যাপশনে বলা হয়, দয়া করে এই অভ্যাসগুলো এড়িয়ে চলুন।

ওই পোস্টে ১, ২, ৩ ক্রমানুসারে সকালের নাস্তা না করা, দেরিতে ঘুমানো, বেশি চিনি খাওয়া, সকালে বেশি সময় ধরে ঘুমানো, টিভি বা কম্পিউটার স্ক্রিন দেখতে দেখতে খাওয়া, ঘুমানোর সময় মাথায় টুপি বা হাত-পায়ে মোজা পরে থাকা এবং প্রস্রাব আটকে রাখার অভ্যাস ত্যাগ করার কথা বলা হয়।

অন্যদিকে গত বছরের জুলাইয়ে নাইজেরিয়ায় এমন পোস্ট ভাইরাল হলে সেখানকার একটি অনুসন্ধানী সংবাদমাধ্যমে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নাইজেরিয়া অফিসের সাথে যোগাযোগ করে। তারা এমন কোনো বক্তব্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে দেয়া হয়নি বলে জানায়।


মন্তব্য