কানাডা ও জার্মানির ভিসা কার্যক্রম চালু, স্বস্তিতে শিক্ষার্থীরা

প্রতীকী
প্রতীকী ছবি  © ফাইল ফটো

ঢাকায় কানাডা ও জার্মানির ভিসা অফিস চালু হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকারের দেওয়া লকডাউনের কারণে ভিসা কার্যক্রম বন্ধ করেছিল দেশ দুটি। বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিশেষ অনুরোধে এসব ভিসা অফিস চালু হয়েছে।

সময়মতো ক্যাম্পাসে পৌঁছাতে না পারলে এই দুটি দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তির সুযোগ নিশ্চিত হওয়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা বেশ বেকায়দায় পড়তেন।

গত ৪ এপ্রিল থেকে ১৮ মে পর্যন্ত ঢাকার কানাডা ভিসা অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল। আর জার্মানির ভিসা দেওয়ার কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছিল ৬ এপ্রিল থেকে ১৫ মে পর্যন্ত।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমেরিকা উইংয়ের ডিরেক্টর জেনারেল তৌফিক আহমেদ শাতিল বলেন, শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে ভিসা চালুর অনুরোধ করে মন্ত্রণালয়। ফলে এখন শিক্ষার্থীরা কাগজপত্র জমা দিতে পারছেন। যেকোনো সমস্যা সমাধানে আমরা শিক্ষার্থীদের পাশে থাকবো।

আরও পড়ুন: জার্মানিতে পড়াশোনার খরচ কেমন?

কানাডার মন্ট্রিলে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রকৌশল বিষয়ে স্নাতকোত্তর করতে যাচ্ছেন বাপ্পী রায়। বাংলাদেশ সরকারকে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

কানাডাগামী শিক্ষার্থীদের ভিসা পেতে ভিসা প্রথমে অনলাইনে ১০০ থেকে ১৭০ ডলার ফি দিয়ে কাগজপত্র জমা দিতে হয়। পরে আবেদন কেন্দ্রে শশরীরে গিয়ে আঙুলের ছাপ ও ছবি দিতে হয়। এটা বাধ্যতামূলক। ভিসা পাওয়ার পর আরেকবার ভিসা অ্যাপ্লিকেশন সেন্টারে গিয়ে পাসপোর্টে স্ট্যাম্প করাতে হয়।

আরও পড়ুন: যুক্তরাষ্ট্র-কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯টি স্কলারশিপের সুযোগ পেলেন যিনি

গত বছর কানাডা ছয় মাসের বেশি সময় আঙুলের ছাপ নেওয়ার কার্যক্রম বন্ধ রেখেছিল। ফলে বহু শিক্ষার্থী তাদের সুযোগ হারিয়েছিলেন। এমনকি অনেকে শিক্ষাবৃত্তিও হারিয়েছিলেন। অনেক দাবিদাওয়া জানানোর পর নভেম্বরে ভিসা কার্যক্রম চালু হয়। এরপর গতমাসে আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এদিকে জার্মানিগামী শিক্ষার্থী নাজিম উদ্দিন জানান, জার্মানির বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাওয়া এক হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে শুধুমাত্র দেড়শজন ভিসা কার্যক্রম শেষ করেছেন। বাকিরা চরম দুশ্চিন্তায় ছিলেন। এখন সবাই তাদের বাকি কাজ সেরে নিতে পারবেন।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ