ডিজিটাল ইকোনমি গড়তে রোবটিকসকে প্রাধান্য দিতে হবে: পলক

ডিজিটাল ইকোনমি গড়তে রোবটিকসকে প্রাধান্য দিতে হবে: পলক
রোবটিকস সম্পর্কে হাতে কলমে শিক্ষা দিতে দেশে ৩০০টি স্কুল অব ফিউচার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, রূপকল্প: ২০৪১ বাস্তবায়নে ডিজিটাল ইকোনমি গড়ে তোলার কোন বিকল্প নেই। বৃহস্পতিবার ‘৪র্থ বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াড ২০২১’র সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

জুনাইদ আহমেদ পলক আরও বলেন, আমাদের লক্ষ্য ডিজিটাল ইকোনমি ও জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গড়ে তুলে একটি স্মার্ট জাতি বিনির্মাণ করা। বিগত ১২ বছরে প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নেতৃত্বে আইসিটি খাত শক্ত ভিত্তির উপর দাড়িয়েছে। ইন্টারনেট কানেক্টিভিটি এখন ইউনিয়ন পর্যন্ত, দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সংখ্যা প্রায় ১২ কোটি দাড়িয়েছে এবং ই-গভর্নেন্সে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনা সম্ভব হয়েছে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ১২ বছর আগে বাংলাদেশ ছিল প্রযুক্তি বিহীন দুর্নীতিগ্রস্ত দরিদ্র রাষ্ট্র। কিন্তু বাংলাদেশ আজ প্রযুক্তি নির্ভর ও দুর্নীতিমুক্ত দেশ। আগামী প্রজন্মকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় উপযোগী করে গড়ে তুলতে শেখ হাসিনা ইন্সটিটিউট ফ্রন্ট্রিয়ার টেকনোলজি স্থাপন করা হচ্ছে। রোবটিকস সম্পর্কে হাতে কলমে শিক্ষা দিতে দেশে ৩০০টি স্কুল অব ফিউচার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। যা আগামী ২০২২ সাল থেকে চালু করা হবে। মানুষের জীবনের ঝুকি থাকে এমন কাজগুলোতে রোবটের আরও বেশি ব্যবহার করার জন্য অর্থায়নসহ তরুণ শিক্ষার্থী এবং গবেষকদের উৎসাহিত করতে হবে। আগামী বছর দেশে একটি রোবটিকস ফেস্টিবাল করা হবে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক ড. মো. আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল প্রমুখ।


সূত্র: বাসস


মন্তব্য

x