কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী আটক

কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী আটক
রিনা আক্তার মায়া  © সংগৃহীত

টাঙ্গাইল শহরের দেওলা এলাকায় রিনা আক্তার মায়া নামে এক কলেজছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় ভাড়াটিয়া বাসা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত মায়া সরকারি কুমুদিনী কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ও কালিহাতী উপজেলা মহেলা গ্রামের হাবিল উদ্দিনের মেয়ে। এ ঘটনায় পুলিশ তার স্বামী প্রান্তকে আটক করেছে।

জানা গেছে, গত দেড় বছর আগে শহরের বিশ্বাসবেতকা মুন্সিপাড়া এলাকার সামাল খাঁনের ছেলে ওয়াহেদুল ইসলাম প্রান্তর সঙ্গে রিনা আক্তার মায়ার পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকেই তাকে শারীরিক ও মানুষিকভাবে নির্যাতন করত। এ কারণে ছাত্রীর বাবা হাবিল উদ্দিন মেয়ের জামাতা প্রান্তর বাবার কাছে অভিযোগ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রান্ত দেওলার ভাড়াটিয়া বাসায় যান।

হাবিল উদ্দিন জানান, বাসায় অন্যদের অনুপস্থিতির সুযোগে রিনা আক্তার মায়ার উপর চড়াও হন প্রান্ত। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে মায়াকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। এরপর মায়ার মরদেহ গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে ডাকচিৎকার করেন। প্রতিবেশীরা পুলিশকে খবর দিলে মরদেহ উদ্ধার এবং স্বামী প্রান্তকে আটক করা হয়।

প্রান্তর বাবা সামাল খাঁন জানান, স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়ার একপর্যায়ে রিনা আক্তার মায়া গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তার ছেলে প্রান্তকে অহেতুক দোষারোপ করা হচ্ছে।

টাঙ্গাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন জানান, এ বিষয়ে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে প্রান্তকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্ত প্রান্তকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।


x