স্কুলে বিয়ের অনুমতি না দেয়ায় যুবদল নেতার হাতে প্রধান শিক্ষক লাঞ্ছিত

স্কুলে বিয়ের অনুমতি না দেয়ায় যুবদল নেতার হাতে প্রধান শিক্ষক লাঞ্ছিত
আটককৃত মোহাম্মদ হারুন  © ফাইল ছবি

স্কুলে বিয়ের অনুষ্ঠান করতে না দেয়ায় চট্টগ্রামের ডবলমুরিংয়ে এক স্কুলের প্রধান শিক্ষককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে মহানগর যুবদল নেতা মিয়া মো. হারুন খানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার রাতে এলাকা থেকে যুবদল নেতা মিয়া মো. হারুন খানকে গ্রেফতার করা হয়। ভুক্তভোগী খান সাহেব আব্দুল হাকিম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, তার নাম নিজাম উদ্দিন।  লাঞ্ছনার অভিযোগ উঠেছে অভিভাবক সদস্য একরাম মিয়া ও তার দুই ভাই মো. হারুন খান ও জানে আলমের বিরুদ্ধেও।

ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন রোববার (৪ জুলাই) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গ্রেফতার হারুন মহানগর যুবদলের সহসভাপতি। আর মামলা করা ব্যক্তি নিজাম উদ্দিন ডবলমুরিংয়ের মনসুরাবাদ এলাকার খান সাহেব আব্দুল হাকিম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

মামলার অভিযোগের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, ওই বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির অভিভাবক সদস্য একরাম মিয়া লকডাউনের মধ্যে স্কুল প্রাঙ্গণে মেয়ের বিয়ের আয়োজন করার অনুমতি চান। করোনার কারণে অনুমতি দেয়নি কমিটি। তা সত্ত্বেও গত ২৫ জুন স্কুল প্রাঙ্গণে তিনি বিয়ের আয়োজন করেন। গোপনে তথ্য পেয়ে জেলা প্রশাসন গিয়ে সেই অনুষ্ঠান বন্ধ করে দেয়।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক নিজাম অভিযোগ করেন, এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে একরাম মিয়া, তার দুই ভাই মিয়া মো. হারুন খান ও জানে আলম শিক্ষকদের দাপ্তরিক কাজে বিদ্যালয় না যেতে হুমকি দেন। এ ব্যাপারে নিজাম শিক্ষা বোর্ডে অভিযোগও জানান।

অভিযোগ তদন্তে ৩০ জুন পাঁচলাইশ-ডবলমুরিং থানা শিক্ষা কর্মকর্তা শফিউল আলমের নেতৃত্বে একটি স্কুলে যান। সেখানে আসেন নিজামসহ কয়েকজন শিক্ষক। সে সময় একরাম মিয়ার ভাই যুবদল নেতা হারুন খান, জানে আলম ও তাদের সহযোগীরা প্রধান শিক্ষকের রুমে ঢুকে তাকে গালমন্দ এবং হত্যার হুমকিও দেন।

এ ঘটনায় গতকাল শনিবার ছয়জনকে আসামি করে ডবলমুরিং থানায় মামলা করেন নিজাম। রাতেই প্রধান আসামি হারুন খানকে গ্রেফতার করা হয়। তাকে রোববার আদালতে তোলা হবে বলে জানান ওসি।


x

সর্বশেষ সংবাদ