অভিমানে গলায় ফাঁস দিয়ে এসএসসি পরিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

নিহত
মুবতাসিন ফুয়াদ ওরফে প্রীতম (  © সংগৃহীত

বাবা-মায়ের ওপর অভিমান করে মুবতাসিন ফুয়াদ ওরফে প্রীতম (১৬) নামের এক এসএসসি পরিক্ষার্থী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আজ বুধবার (৯ জুন) বেলা সাড়ে ১১টায় বগুড়ার শাজাহানপুরের নিজ বাড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মৃত প্রীতম উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের কাঁটাবাড়িয়া মধ্যপাড়া গ্রামের এনামুল হকের ছেলে। সে বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমি ল্যাবরেটরি স্কুল এ্যান্ড কলেজের এসএসসি পরিক্ষার্থী ছিল। প্রীতমের বাবা এনামুল হক বগুড়া সদরে যুব উন্নয়ন অফিসে চাকরি করেন। মা ইয়াসমিন বেগম উপজেলার তালপুকুর দাখিল মাদরাসার শিক্ষিকা।

প্রীতমের বাবা এনামুল হক জানান, মঙ্গলবার (৮ জুন) রাত ১১টার দিকে প্রীতম ঘরে ঘুমাতে যায়। পরদিন ভোরে ফজর নামাজের জন্য ছেলেকে ডাকতে গিযে ঘরের দরজা ও জানালা বন্ধ দেখতে পান তিনি। অনেক ডাকাডাকির পরও কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে ছেলেকে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে থাকতে দেখেন তিনি।

প্রতিবেশীরা জানান, প্রীতমকে খুব শাসনের করতেন তার বাবা-মা। লেখাপড়ার জন্যও চাপ দিতেন তারা। বাইরে যেতে দিতেন না। মঙ্গলবার রাতে ছেলেকে বাড়ির বাইরে দেখে বকাঝকা করেন বাবা। তবে সঠিক কী কারণে সে আত্মহত্যা করেছে?- তা তারা জানেন না।

শাজাহানপুর থানার ওসি (তদন্ত) নান্নু খান জানান, মা-বাবার ওপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে প্রীতম। প্রয়োজনীয় আইনি প্রক্রিয়া শেষে স্বজনদের হাতে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।


মন্তব্য