‘ই-জয়িতা মার্কেটপ্লেস নারী উদ্যোক্তা তৈরি ও বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে’

ই-কমার্স
জয়িতা ফাউন্ডেশন  © সংগৃহীত

মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, ‘সকলের নিকট ই-কমার্স জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। একই সাথে লাখ লাখ মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হচ্ছে। দেশের শতকরা ৮০ ভাগ ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছেন নারী উদ্যোক্তারা। ফলে নারীরা আর্থিক সচ্ছলতা অর্জনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হচ্ছেন। জয়িতা ফাউন্ডেশনের অনলাইন মার্কেটপ্লেস ‘ই-জয়িতা’ চালু করা একটি সময়োপযোগী পদক্ষেপ। ই-জয়িতা মার্কেটপ্লেস দেশে নারী উদ্যোক্তা তৈরি ও তাদের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের নারীদের মধ্যে রয়েছে উদ্যোক্তা হওয়ার বিশাল সম্ভাবনা। এই সম্ভাবনাকে বাস্তবে রূপ দিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও সামাজিক অগ্রগতির মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হবে। তবে নারীদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে উঠতে রয়েছে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা। সকল বাঁধা বিপত্তি দূর করে ব্যবসায় উদ্যোগ নারীদের সম্পৃক্ত করা ও তাদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১১ সালের ১৬ নভেম্বর জয়িতা ফাউন্ডেশনের উদ্বোধন করেন।’

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) ঢাকার ধানমন্ডিস্থ রাপা প্লাজায় জয়িতা ফাউন্ডেশনের ‘ই-জয়িতা মার্কেটপ্লেস’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে জয়িতা ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফরোজা খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান বেগম চেমন আরা তৈয়ব ও ই-ক্যাবের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয় ও জয়িতা ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ ও নারী উদ্যোক্তাগণ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তথ্য-প্রযুক্তির সুবিধা গ্রামে গ্রামে পৌঁছে দিয়েছেন। তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীরাও ই-কমার্সের মাধ্যমে নিজেদের কর্মসংস্থান করতে পারছে। কোভিড মহামারি সময়ে ই-কমার্স দ্রুত বিকাশ লাভ করছে। অনেকে চাকুরি ছেড়ে দিয়েও ই-কমার্স করছে এবং তাদের আয় আগের চেয়ে বেশি।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সায়েদুল ইসলাম বলেন, ‘আজ বাংলাদেশের যে উন্নয়ন তাঁর পেছনে রয়েছে নারীর অবদান। সরকার নারীদের আরো বেশি দক্ষ ও কর্মক্ষম করে গড়ে তুলছে। যার মাধ্যমে কর্মস্থলে নারীর সমতা নিশ্চিত হবে।’

ই-জয়িতা অনলাইন মার্কেটপ্লেসে এক লাখ নারী উদ্যোক্তা সংযুক্ত হতে পারবে। দেশে সকল জেলা থেকে উদ্যোক্তারাদের নিবন্ধন শুরু হয়েছে। ক্রেতারা ভিডিও কলে পছন্দের পণ্য পছন্দ করতে পারবে। বিশ্বের যে কোন দেশ থেকে পণ্য অর্ডার করা যাবে। যে কোনো ব্যংকের কার্ড ও মোবাইল ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেনের সুব্যবস্থা রয়েছে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে শেরপুর থেকে নারী উদ্যোক্তা জিমি আরা জেমি এবং রাজশাহী থেকে কান্তা চক্রবর্তী অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে তাদের পণ্য বিক্রি ও ই-জয়িতার সুবিধা তুলে ধরেন।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ