মুক্তি পেল ত্রিপুরা ভাষায় পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘তাক্রিদি’

মুক্তি পেল ত্রিপুরা ভাষায় পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘তাক্রিদি’
  © টিডিসি ফটো

পরিচালক থেকে শুরু করে অভিনয় শিল্পী সবাই নতুন। খুব একটা অভিজ্ঞতা ছিল না। বলতে হয় কাঁচা হাতে দারুণ রান্না। মুক্তি পেল বাংলাদেশের ত্রিপুরা জাতির প্রথম সম্পূর্ণ ত্রিপুরা ভাষায় ও ঐতিহ্য সমৃদ্ধ পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘তাক্রিদি’। তরুণ নির্মাতা রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার সজীব ত্রিপুরার (সিএসই) পরিচালনায় চার ঘণ্টার এই ছবি মুক্তি পেয়েছে।

ছবিতে ফুটিয়ে তুলেছে সুকৈ’ ত্রিপুরা জাতিগোষ্ঠীর বিশেষ একটি খেলা। যেটি বাংলায় ঘিলা খেলা নামেও পরিচিত। এই সুকৈ খেলাকে কেন্দ্র করে হাতং এবং হাপৈং নামক দুটি পাড়ার মধ্যে একদিকে বিবাদ, প্রতিদ্বদিন্দ্বতা এবং উদ্দীপনা। অপর দিকে দুটি গ্রামের তরুণ-তরুণীর প্রেমের সম্পর্ক। এই প্রেমের সম্পর্ক কীভাবে দুটো গ্রামের মধ্যকার বিবাদ ভুলিয়ে দিয়েছে সেটিই তুলে ধরা চেষ্টা করেছেন পরিচালক সজীব ত্রিপুরা।

গত শুক্রবার (২৬ফেব্রুয়ারি ২০২১খ্রিঃ) সন্ধ্যায় খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট অডিটোরিয়ামে ছবিটি প্রদর্শিত হয়। শুভ উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা। মূল্যায়নে তিনি ফিল্মের পরিচালক রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক সজীব ত্রিপুরা ভূয়সী প্রশংসা করেন। ফিল্মটিকে তিনি রেটিং করতে গিয়ে এ+ (এ প্লাস) পাওয়ার যোগ্য বলে মন্তব্য করেন।

খাগড়াছড়ি পৌর মেয়র নির্মলেন্দু চৌধুরী, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য নিলোৎপল খীসা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ মারুফ, উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যানের সহধর্মিণী ও সঙ্গীতশিল্পী অনামিকা ত্রিপুরা, বাংলা একাডেমী পুরষ্কারপ্রাপ্ত লেখক ও গবেষক প্রভাংশু ত্রিপুরা, রাষ্ট্রীয় কর্তৃক রোকেয়া পদক প্রাপ্ত শোভা রাণী ত্রিপুরা ও প্রথম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পদকপ্রাপ্ত মথুরা বিকাশ ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট এর উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) জিতেন চাকমা, বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদের সাবেক সভাপতি সুরেশ মোহন ত্রিপুরা, বর্তমান কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অনন্ত কুমার ত্রিপুরা, ফিল্মের পরিচালক রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক সজীব ত্রিপুরা, রাঙ্গামাটির নারী নেত্রী সাগরিকা রোয়াজা, খাগড়াছড়ির শাপলা দেবী ত্রিপুরা, ত্রিপুরা স্টুডেন্টস্ ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি প্রেম কুমার ত্রিপুরা সহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এ ছাড়াও ককবরক অফলাইন ডিকশনারি মোবাইল অ্যাপস, ককবরক ওয়ার্ড বুক এবং ইংলিশ গ্রামার ইন ককবরক মোবাইল অ্যাপস এর শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। এর আগে আয়োজনের শুরুতে ছিল পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যানের সহধর্মিণী ও সংগীত শিল্পী অনামিকা ত্রিপুরার একক সংগীতানুষ্ঠান।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ