অমর একুশে বইমেলায় আসছে চবির ২০ শিক্ষার্থীর বই

অমর একুশে বইমেলায় আসছে চবির ২০ শিক্ষার্থীর বই
বইমেলায় বইপ্রেমীদের ভিড়  © ফাইল ফটো

আগামীকাল (১৮ মার্চ) বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০২১। চলবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত। ইতিহাস, রাজনীতি, বিজ্ঞান, উপন্যাস, কবিতা ও গল্প নিয়ে প্রতি বছরের মতো এবারও বইমেলা উপলক্ষে প্রকাশিত হচ্ছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ধরণের বই। এসব বই পাঠক হৃদয়কে দোলা দেবে, এমনই প্রত্যাশা লেখকদের। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া এমন ২০ জন শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে তাদের বই সম্পর্কে লিখেছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি রোকনুজ্জামান

বইয়ের নাম: গন্তব্যের খোঁজে
ধরন: আত্ম-উন্নয়ন মূলক
লেখক: জাহেদুল ইসলাম

সংকল্প প্রকাশন থেকে আসছে চবির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী জাহেদুল ইসলামের বই ‘গন্তব্যের খোঁজে’। আত্ম-উন্নয়ন মূলক এ বইতে মানুষের ঘুমিয়ে থাকা বিবেককে জাগ্রত করার চেষ্টা করেছেন লেখক। অস্থায়ী দুনিয়াকে খুঁজতে গিয়ে প্রকৃত আবাসস্থল তথা আখেরাতকে একেবারেই ভুলে বসে মানুষ, ভুলে যায় নিজ স্রষ্টাকেও। তাই বইটিতে লেখক দুনিয়ার জীবনকে সফল করার পাশাপাশি অনন্তকালের জীবনকেও কীভাবে সফল করা যায় সে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছেন।

বইয়ের নাম: জলপাই রঙের দিনগুলি
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: আজম মোহাম্মদ

সময়ের অলিগলি ধরে ছুটে চলে মানুষের মন, দৃষ্টিতে গেঁথে থাকে সমাজের ছবি। যাপিত জীবনের কিছু অনুভব, কিছু বোধ, চোখের মণিতে গেঁথে থাকা পার্থিব অপার্থিব সব সৌন্দর্য নিয়েই 'জলপাই রঙের দিনগুলি'। গলুই প্রকাশনের ব্যানারে চবির ব্যবস্থাপনা বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আজম মোহাম্মদের এ কবিতার বইটিও থাকবে এবারের মেলায়।


বইয়ের নাম: দুই তীরের বায়োস্কোপ
ধরন: উপন্যাস
লেখক: আকাশ মজুমদার

অনন্য প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হচ্ছে নৃবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আকাশ মজুমদারের এ উপন্যাসটি।

ছোট বেলায় ‘ওপেনটি বায়োস্কোপ’, ‘উবুদুবু’ কিংবা ‘এক্কাদোক্কা’ খেলাগুলো কমবেশি আমরা সবাই খেলেছি। গ্রাম-বাংলার এই খেলাগুলো আজ হারিয়ে যাওয়ার পথে। যেগুলো ছিল আমাদের সংস্কৃতির একটি বিরাট অংশ জুড়ে। আর এই খেলাগুলোর মতোই হারিয়ে গিয়েছে ‘ফেনী’ নদীর দুই তীরের মানুষদের সংস্কৃতি। এক সময়ের যৌবনা ফেনী নদীকে বর্তমানে বলা হয় ‘মরা গাঙ’।

১৯৭১ সালে পাকিস্থানি হানাদারদের তান্ডবে ধ্বংস হয়েছিল ফেনী নদীর দুই তীরের বেশ কিছু হিন্দু বাড়ি। কেউবা আবার দেশ ছেড়ে পালিয়েছিলেন। তাদের সাথে হারিয়ে গিয়েছে এই দুই তীরের হিন্দু বাড়িগুলোর বেশ কিছু পূজা-পার্বণ যেগুলো ছিল দুই তীরের মানুষদের সম্প্রীতির অন্যতম মাধ্যম।

ফেনী নদীর দুই তীরের তৎকালীন এই হিন্দু বাড়িগুলোর সংস্কৃতি, গ্রামীণ মানুষদের লৌকিক বিশ্বাসসমূহ এবং তাদের চর্চিত বিভিন্ন আচারানুষ্ঠানকে উপজীব্য করে গড়ে উঠেছে উপন্যাস ‘দুই তীরের বায়োস্কোপ।

বইয়ের নাম: বটপুষ্প আবীর রাঙা
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: ইফতেখার আবির

বইমেলাকে সামনে রেখে অক্ষরবৃত্ত প্রকাশন প্রকাশ করেছে ইফতেখার আবিরের একক কাব্যগ্রন্থ ‘বটপুষ্প আবীর রাঙা’। অক্ষরবৃত্ত পাণ্ডুলিপি পুরষ্কারে নির্বাচিত হিসেবে প্রকাশিত হয়েছে গ্রন্থটি। ৬৪ পৃষ্ঠার বইটিতে কবিতা রয়েছে মোট ৫৪টি। প্রায় সব কবিতাই জীবন-প্রেম-নারী-প্রকৃতি আর বাস্তবতা কেন্দ্রিক। বইয়ের লেখক বর্তমানে চবির অর্থনীতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন।

বইয়ের নাম: শাটলতান
ধরন: গল্পগ্রন্থ
লেখক: মুসাদ্দিকুল ইসলাম

এমখান প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হচ্ছে অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী মুসাদ্দিকুল ইসলামের গল্পগ্রন্থ ‘শাটলতান’। এই বইয়ে চবিয়ানদের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত উঠে আসার পেছনের গল্প তুলে এনেছেন লেখক। অনেকে দারিদ্র্যকে জয় করে, অনেকে আবার পারিবারিক-সামাজিক বিভিন্ন সমস্যাদি জয় করে হয়েছেন আজকের চবিয়ান। প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে স্বপ্নের বিদ্যাপীঠ পর্যন্ত পাড়ি দিতে গিয়ে অজান্তেই অনেক অলিখিত গল্প রচিত হয় যা একত্রিত করে একই পাণ্ডুলিপিতে লিখিত রূপ পাওয়া যাবে এই বইয়ে। ‘শাটলতান’ এইসব বাস্তবজীবনের গল্পের গল্পজোট।

বইয়ের নাম: মানুষ হওয়ার স্বপ্ন
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখকের নাম: মুহাম্মদ হেদায়ত উল্লাহ

পাহাড়বেষ্টিত দ্বীপ উপজেলা মহেশখালীতে জন্ম নেওয়া অনুজ কবি মুহাম্মদ হেদায়ত উল্লাহর দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ 'মানুষ হওয়ার স্বপ্ন' স্বপ্ন দেখাবে সত্যিকারের মানুষ হওয়ার। মুহূর্তেই পাঠককে হতাশার গ্লানি ভুলিয়ে সফলতার আলোকপানে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা যোগাবে। 'মানুষ হওয়ার স্বপ্নে' একসাথে গ্রন্থিত হয়েছে শিশু, কিশোর এবং তারুণ্যের জন্য পাঠমুগ্ধ হবার যথেষ্ট খোরাক। পরিবার, গ্রাম, নগর, দেশ, নারী, মানবতা, ধর্ম, আলোকিত মানুষ ইত্যাদি বিষয়ে সুরের গুঞ্জরণে ছন্দোময় বিন্যাস গ্রন্থটিকে সুশোভিত করেছে।

বইটি প্রকাশ করছে সালফি পাবলিকেশন্স। কবি মুহাম্মদ হেদায়ত উল্লাহ চবির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন।


বইয়ের নাম: সুবোধ ও তার এলিজি
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: সাইফুল্লাহ মানছুর

সুবোধ মূলত শুদ্ধবোধ ধারণকারী এমন মানুষদের প্রতিচ্ছবি যারা সবখানে বড্ড বেশি বঞ্চনার শিকার। অপ্রাপ্তি, প্রবঞ্চনার গেঁড়াকলে যারা বড্ড বেশি আটকে গেছে। যারা বিশ্বাস করে ঠকে গেছে। এমনই সব বঞ্চনার কথা বলা হয়েছে ‘সুবোধ ও তার এলিজি’ কাব্যগ্রন্থে। বইটিতে আছে সব পরাজয়, বঞ্চনার শিকল ভেঙে ঘুরে দাঁড়ানোর কবিতাও। দিনশেষে, ব্যক্তিগত প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, বঞ্চনা-ঘুরে দাঁড়ানোর মিশেলে 'সুবোধ ও তার এলিজি' হয়ে উঠেছে তাদের কবিতা, যাদের কবিতা খুব কম মানুষ লেখে।

কবি সাইফুল্লাহ মানছুরের ‘সুবোধ ও তার এলিজি’ কাব্যগ্রন্থটি প্রকাশ করেছে 'সংকল্প প্রকাশন'। কবি চবির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণিতে অধ্যয়নরত আছেন।

বইয়ের নাম: জুদাইজম
ধরন: ইতিহাস, ধর্মতত্ত্ব এবং রাজনীতি
লেখক: মাসরুর ইশরাক

জ্ঞান-বিজ্ঞানে শ্রেষ্ঠ না হয়েও শুধু ধর্মীয় চেতনার কারণে কীভাবে হিব্রুরা পরিণত হয়েছিল একসময়কার শ্রেষ্ঠ জাতিতে? প্রযুক্তির জ্ঞান না থাকার পরেও শুধু উচ্চমাত্রার শব্দ ব্যবহার করে কীভাবে তারা একটি বিশাল নগরীর দেওয়াল ধ্বংস করে দিতে পেরেছিল? কেনই বা সৃষ্টিকর্তার এত অনুগ্রহ পাওয়া সত্ত্বেও পতন ঘটলো হিব্রু জাতির?

প্রাচীন ইহুদি ধর্ম কীভাবে পরিবর্তিত হয়ে পরিণত হলো জুদাইজমে? কী তাদের বিশ্বাস ও আইন? দীর্ঘ দুই হাজার বছর পর কেন হিব্রুরা আবার প্যালেস্টাইনের ভূমিতে পদার্পন করল? কেন এত যুদ্ধ, রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম? কীভাবে বিশ্বকে তারা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিল? কার জন্য অপেক্ষা করছে তারা? কে সেই মেসিয়াহ? মুসলিম ও খ্রিস্টানদের তারা কীভাবে দেখে?

এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে হলে ফিরে যেতে হবে ৪০০০ বছর আগের মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক ইতিহাসে। সেই সাথে জানতে হবে তাদের ধর্মগ্রন্থ, চেতনা, বিশ্বাস এবং আইন সম্পর্কে। জানতে হবে তাদের এস্কেটোলজি, মেসিয়াহ এবং জায়োনিজম সম্পর্কে। 'জুদাইজম' বইটি পাঠকদের ইহুদিদের সেই সব জগৎ থেকে ঘুরিয়ে আনবে। ইতিহাস জানানোর পাশাপাশি তাদের বিশ্বাস, নীতি, চিন্তাভাবনার সাথে পরিচিত করিয়ে দিবে পাঠকদের।

ভূমিপ্রকাশ প্রকাশনী থেকে চবির ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাসরুর ইশরাকের ‘জুদাইজম’ বইটিও প্রকাশিত হচ্ছে এবারের বইমেলায়।


বইয়ের নাম: বিনি সুতোর রাজনীতি
ধরন: রাজনীতি, অর্থনীতি ও ধর্মনীতি নিয়ে বিতর্কনির্ভর প্রবন্ধ
লেখক: আদনান তাহসিন আলমদার

অর্থনীতি, রাজনীতি ও ধর্মনীতি– এই তিন খন্ডে বিভক্ত বিতর্কনির্ভর প্রবন্ধ-পুস্তক 'বিনি সুতোর রাজনীতি' বইয়ে দেশের সাম্প্রতিক বিষয়াবলী নিয়ে পর্যালচনা করেছেন লেখক। যার প্রথম অংশ সাজানো হয়েছে সাম্প্রতিক অর্থনীতি নিয়ে; যেখানে দেশের বর্তমান জিডিপির রাজনীতি, দালালের বাড়াবাড়ি, ব্ল্যাক মানি প্যারাডক্স, ঘুষের প্রবণতা, ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা হয়েছে বিশ্লেষণিক পদ্ধতিতে।

দ্বিতীয়ভাগে আছে দেশের জাতীয় রাজনীতি ও গণমাধ্যম চরিত্র নিয়ে কিছু লেখা। লেখক চেষ্টা করেছেন দেশের মৌলিক সমস্যার সমাধান খুঁজতে ও একটি সাধারণ বিন্দুতে এসে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার গুরুত্ব বুঝিয়ে দিতে।

‘বিনি সুতোর রাজনীতি’র তৃতীয় এবং সর্বশেষ অংশে চলমান আন্তর্জাতিক কিছু ইস্যু এবং আন্তঃদেশীয় মৌলবাদ ও উগ্র-সাম্প্রদায়িক রাজনীতি, একইসাথে ভুল ব্যাখ্যার ছড়াছড়ি নিয়ে কিছু আলোচনা হয়েছে। যেখানে সচেতন পাঠক ‘মৌলবাদের উত্থান থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত হয়ে আসার ঘটনাপ্রবাহ’র সারকথা বুঝে নিতে পারবেন অতি সহজেই।

অক্ষরবৃত্ত প্রকাশনী থেকে চবির অর্থনীতি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আদনান তাহসিন আলমদারের বইটি প্রকাশ পাচ্ছে এবারের বইমেলায়।


বইয়ের নাম: মায়াবতী
ধরন: কবিতাগ্রন্থ
লেখক: লামিয়া ফেরদৌসী

জেনেটিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী লামিয়া ফেরদৌসীর কাব্যগ্রন্থ ‘মায়াবতী’ থাকছে এবারের বইমেলায়। দৃশ্যকল্পের বাস্তবায়ন, ভালোবাসার স্তরবিন্যাস, দুঃখ-যন্ত্রণার মর্মান্তিক রূপ, উন্মত্ততা-উন্মাদনায় পাঠক নিজেকে খুঁজে পাবেন কবির সৃষ্টি ‘মায়াবতী’ কাব্যে।

বইয়ের নাম: মোড়কে মোড়া রংতুলি
ধরন: ছোটগল্প
লেখকের নাম: আদিত্য সিংহ

‘মোড়কে মোড়া রংতুলি’র বেশিরভাগ গল্পই রোমান্টিক ধর্মী। প্রিয়জন হারানোর বেদনায় ক্ষত মানুষের ছটফটানি, কিছুটা অলৌকিকত্ব, ছোটোবেলায় দেয়া প্রতিশ্রুতির রক্ষা, ভুল মানুষের জন্য সর্বস্বান্ত মানুষের কথা ইত্যাদির পাঁচমিশালী এই বই।

লেখক আদিত্য সিংহ চবির ফাইন্যান্স বিভাগের শেষ বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন। বইটি প্রকাশ করছে 'নন্দন বইঘর'।

বইয়ের নাম: রোদেপোড়া রেলস্টেশন
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: রহমাতুল্লাহ রাফি

প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘রোদেপোড়া রেলস্টেশন’ নিয়ে আলাপকালে লেখক বলেন, এটি আমার দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ। বইমেলার বই হলেও মেলার পূর্বেই এটা পাঠকের হাতে পৌঁছে গেছে। পাঠ পরবর্তী তাদের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা লেখালেখির ময়দানে আমার দায়িত্ববোধকে আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।

প্রেম-বিরহ, বস্তুনিষ্ঠ দর্শন, ডার্ক কমেডি, স্যাটেয়ার প্রভৃতি বিষয়ের উপর কাব্যগ্রন্থটি গড়ে উঠেছে। একটি স্বচ্ছ দর্পণের মতো যার পঙ্ক্তিতে-পঙ্ক্তিতে ফুটে উঠেছে রহস্যঘেরা জীবনের নাটকীয় গল্প।

চবির সম্মান দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রহমাতুল্লাহ রাফির দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ ‘রোদেপোড়া রেলস্টেশন’। বইটি প্রকাশ করেছে ‘৫২ (বায়ান্ন) প্রকাশনী।

বইয়ের নাম: গ্রাফিতিরা জেগে রয়
ধরন: বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী
লেখক: শাহরিয়ার জাওয়াদ

কল্পকাহিনীটি সাজানো হয়েছে প্যারালাল ইউনিভার্স বা সমান্তরাল মহাবিশ্ব ধারণার ওপর ভিত্তি করে। দুটি ভিন্ন জগতে দুটি ভিন্ন পরিবেশ, ভিন্ন পরিস্থিতি। শুরুটা হয় অন্যভুবনে, কঙ্গোর সাভানা থেকে। তারপর গল্পের নায়ক ছুটে বেড়ায় কঙ্গোর রেইন ফরেস্টে। ধাওয়া করে বেড়ায় একদল ভয়ঙ্কর অপরাধীর। দেখে বনভূমির আদিবাসী- বান্টু আর পিগমিদের জীবনযাত্রা।

সর্বপরি, এ বইয়ে পাঠক খুঁজে পাবে একজন সহজ সরল বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া তরুণকে। ছকে বাঁধা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর গণ্ডির বাইরে গিয়ে এটা একজন রায়হানে জীবনের গল্প।

লেখকের প্রথম বই ‘গ্রাফিতিরা জেগে রয়’ প্রকাশ করেছে জ্ঞানকোষ প্রকাশনী, প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। লেখক শাহরিয়ার জাওয়াদ বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণরসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন।

বইয়ের নাম: ভূত স্যার
ধরন: শিশু-কিশোর গল্প
লেখক: মাহবুব এ রহমান

অক্ষরবৃত্ত পাণ্ডুলিপি প্রতিযোগিতায় শিশুসাহিত্য বিভাগের নির্বাচিত পাণ্ডুলিপি হিসেবে বইটি প্রকাশ করেছে অক্ষরবৃত্ত প্রকাশন। ‘ভূত স্যার’ লেখক বর্তমানে সম্মান তৃতীয় বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন। এ বইটিতে গল্পের মাধ্যমে শিশু-কিশোরদের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়েছে বিভিন্ন সচেতনতামূলক বার্তা।

বইয়ের নাম: নিঃশব্দের মিছিল
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: নাহিদা ইসলাম

হৃদয় দিয়ে কেনা প্রেমের অপর পৃষ্ঠে ছলনা। জমজমাট প্রতারণার হাটে শূন্য হয়ে ফিরে শুদ্ধ প্রেমিক। জীবনানন্দের পাখিরা ঘরে ফেরে না। সবখানে বিকৃত রসনার রসুইঘর। এমন শূণ্যতা, অপ্রাপ্তি, অপ্রেম, প্রকৃতিনাশ, অভিমান, আঁধার আর দুঃস্বপ্ন তাড়াতে প্রত্যয়গাঁধা স্বপ্নবাহী ভোরের আলোর মতো সুন্দরের প্রত্যাশায়- ‘নিঃশব্দের মিছিল’।

সামাজিক চোখরাঙ্গানি, বিকৃত পুঁজির রঙবদল, সাধুবেশে খল, ডাস্টবিন যেন শিশুর দোলনা, সড়কে প্রাণহানি যেন নিয়তি, ফুটপাত যেন আঁতুড়ঘর, এদেশে আগস্ট আসে শোকের বারতা নিয়ে, ঝিমোয় আফিমখোর সমাজপতি। সবাই বিভোর নিরপেক্ষতার ভানে। ঠিক এখানে নাহিদা ইসলাম নিরপেক্ষ না থেকে ন্যায়ের পক্ষ নিয়েছেন।

রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী নাহিদা ইসলামের কাব্যগ্রন্থ ‘নিঃশব্দের মিছিল’ও থাকছে এবারের বইমেলায়। বইটি প্রকাশিত হয়েছে পরাপাঠ প্রকাশনী, ঢাকা থেকে।

বইয়ের নাম: হলদে বিহরণ
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: আবদুল্লাহ আল মামুন

চবির আরবি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ আল মামুনের প্রথম কাব্যগ্রন্থ 'হলদে বিহরণ'। বইমেলাকে সামনে রেখে কাব্যগ্রন্থটি প্রকাশ করেছে চট্টগ্রামের গলুই প্রকাশনী। ৫৪টি মিশ্র কবিতার সমন্বয়ে রচিত কাব্যগ্রন্থের অধিকাংশ কবিতাই বঞ্চিত মানুষের হাহাকার, সমাজের ছলচাতুরী, অমানবিক বৈষম্য ও চলমান রীতি-নীতির যাতাকলে পিষ্ট হওয়ার স্থিরচিত্র এবং তা হতে উত্তরণের সম্ভাব্য পথ।

তাছাড়াও প্রেম, দেশপ্রেম, প্রকৃতি নিগৃহীতের আর্তনাদ ও ভবিতব্যের প্রকাশিত পৃথিবীর রূপকল্প নিয়ে ব্যর্থ ছন্দের গাঁথুনিতে মুক্তির চির অমলিন সজীব শব্দ ‘ভালবাসা’ নামক ঘর নির্মাণের চেষ্টা করেছেন কবি।

বইয়ের নাম: বসে থাকি নিজের মুখোমুখি
ধরন: কাব্যগ্রন্থ
লেখক: সাইদুল ইসলাম

বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাইদুল ইসলামের এই কবিতার বইয়ে রয়েছে ৪৯টি কবিতা। গ্রন্থটি প্রকাশ করেছে নন্দন বইঘর, চট্টগ্রাম।

‘বসে থাকি নিজের মুখোমুখি’ বইটি ৫৬ পৃষ্ঠার একটি কবিতার বই। লেখক সাইদুল ইসলামের ব্যক্তিক ভাবাবেগের প্রাধান্যনির্ভর একটি কবিতার বই এটি। রোমান্টিক ভাবনা; সমাজ, দেশ ও রাষ্ট্রের পরিমিত বাস্তবানুগ রূপভেদ; পরাবাস্তব ভাবনা ও ব্যক্তিক দ্বান্দ্বিকতার মিশেলে বিষয়গত বৈচিত্র‍্যে রয়েছে বইটিতে।

বইয়ের নাম: অগ্নিপুষ্প
ধরন: উপন্যাস
লেখকের নাম: মুহাম্মদ রমিজ উদ্দিন

সালফি পাবলিকেশন্স পাণ্ডুলিপি পুরস্কার-২০২০ বিজয়ী লেখকের প্রথম উপন্যাস 'অগ্নিপুষ্প'। অভাবের সাথে পাল্লা দিয়ে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করা একটি মেয়ের ইজ্জত রক্ষার সংগ্রাম, ধর্ষণ, সামাজিক অসংগতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু স্বপ্নবাজ তরুণদের প্রতিবাদ, মানবিক কর্মকাণ্ড, প্রেম ইত্যাদি প্রেক্ষাপটে রচিত হয়েছে অগ্নিপুষ্প।

বইটি প্রকাশ করছে সালফি পাবলিকেশন্স। লেখক মুহাম্মদ রমিজ উদ্দিন চবির ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

বইয়ের নাম: মেহরুবা
ধরন: উপন্যাস
লেখক: রায়হান সোবাহান ইমন

গলুই প্রকাশন থেকে প্রকাশিত হচ্ছে চবির রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রায়হান সোবাহান ইমনের উপন্যাস 'মেহরুবা'। নায়ক মাহাদি আর নায়িকা মেহরুবার প্রেমের গল্পে নির্মিত উপন্যাসটি। যেখানে শিক্ষা জীবনের উত্থান পতনের সাথে প্রেমের প্রবাহমানতা ফুটে ওঠেছে। ফুটে উঠেছে বন্ধুত্বের বন্ধন ও সফলতার পথে ঐক্যযাত্রা।

জীবনের মেঠোপথের আশা-হতাশা, প্রিয়জনদের স্থায়ী বিচ্ছেদ, কঠিন সময়ে মানুষের মতো মানিয়ে নেয়া, প্রেমকে সফলভাবে চালিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি বিয়েকে সহজভাবে দেখানো হয়েছে এ উপন্যাসে। যা প্রেমীদের জন্য যেমন আশীর্বাদ হবে তেমনি অভিভাবকদের জন্য স্বস্তির প্রত্যয় হবে বলেই আশাবাদী লেখক।

বইয়ের নাম: নয়তো বকুল
ধরন: উপন্যাস
লেখক: হাসনিন তমা

তরুণ প্রজন্মের চিন্তা-ভাবনা ও পাঠকদের সমসাময়িক চাহিদাকে কেন্দ্র করে 'নয়তো বকুল' বইটি সাজিয়েছেন ঔপন্যাসিক। তরুণ লেখক হলেও ঔপন্যাসিক হিসেবে বইটিকে ষোলকলায় পূর্ণতা দান করার সব চেষ্টায় করেছেন তিনি। লেখক হাসনিন তমা চবির ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষে অধ্যায়নরত আছেন। বইটি প্রকাশ করেছে পাললিক সৌরভ প্রকাশনী।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ

x