৬ মাসে সেমিস্টার, ৪ মাসে সেশন শেষ করার পরিকল্পনা শেকৃবির

পরীক্ষা
৬ মাসে সেমিস্টার, ৪ মাসে সেশন শেষ করার পরিকল্পনা শেকৃবির  © ফাইল ফটো

করোনাভাইরসের কারণে দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর খুলেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। তবে আটকে থাকা পরীক্ষা এবং দীর্ঘ সেশনজটের সম্ভাবনায় দুশ্চিন্তায় কাটাতে উদ্দেগ নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ। শিক্ষার্থীদের শিক্ষা-জীবন যথাসময়ে শেষ এবং সেশনজট দূর করতে ছয় মাসের সেমিস্টার গুলো চার মাসে শেষ করার পরিকল্পনা করছে শেকৃবি প্রসাশন।

চার মাসে সেমিস্টার শেষ করা প্রসঙ্গে শেকৃবির ভাইস চ্যান্সেলর শহীদুর রশিদ ভুঁইয়া দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, আমরা ৬ মাসে সেমিস্টার, ৪ মাসে সেশন শেষ করার পরিকল্পনা নিয়েছি। এ বিষয় আমরা ইউজিসি'র সাথে আলোচনা ক্রমে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এর আগে অনলাইনে ক্লাস করার সময় আমরা এই পরিকল্পনা নিয়েছিলাম। বিশ্ববিদ্যালয় খোলার কিছু দিনের মধ্যে অধিকাংশ ব্যাচের পরীক্ষার রুটিন চলে গেছে। পরীক্ষাও শুরু হয়ে যাবে। আমাদের পরিকল্পনা প্রথমে আটকে থাকা সেমিস্টার গুলোর পরীক্ষা দ্রুত শেষ করা। পরবর্তীতে অন্যান্য সেমিস্টার গুলোও চার মাসে শেষ করার পরিকল্পনা নিয়েই আমরা অগ্রসর হচ্ছি।

তিনি আরও জানান, বিগত সময়ে আমরা দেখেছি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা পিছানোর জন্য আন্দোলন করতে। ইতোমধ্যে এএসভিএম অনুষদের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা পিছানোর জন্য অনুষদের ডিনের কাছে গিয়েছে বলে শুনেছি। আসলে আমাদের পরিকল্পনার সাথে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ আশা করছি। শিক্ষার্থীদের দিক থেকে সব কিছুর জন্য সহযোগিতা আশা করছি।

এগ্রিকালচার অনুষদের ডিন পরিমল কান্তি বিশ্বাস জানান, আমাদের অনুষদের পরীক্ষা দ্রুত শেষ করার পরিকল্পনা করছি। কিন্তু একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত আমি জানি না। কোনো নোটিস ও পাইনি। তবে আমার অনুষদের শিক্ষার্থীদের আটকে থাকা পরীক্ষা গুলো চার মাসের কম সময়ে শেষ করব। কিন্তু শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে সর্বাত্বক সহযোগিতা পাচ্ছি না।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক কমিটিতে থাকা সদস্য সচিব এবং বর্তমান পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিন অলক কুমার পাল জানান, শিক্ষার্থীদের নিয়ে আমাদের পরিকল্পনা আমরা আগেই জানিয়ে দিয়েছি। দ্রুত সময়ে আমরা পরীক্ষা গুলো শেষ করতে চাই। পরীক্ষার প্লান, রুটিন ইতোমধ্যে প্রকাশ করা হয়েছে। পিছিয়ে থাকার কোনো সুযোগ নেই। শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবর্ষ স্বাভাবিক অবস্থায় যে সময়ে শেষ হওয়ার কথা ঠিক একই সময়ে শেষ করার পরিকল্পনা নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।


মন্তব্য

x

সর্বশেষ সংবাদ