শেকৃবি আর্ট সোসাইটি

প্রশাসনকে ব্যঙ্গ করে কার্টুন, ছাত্রীকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি

কার্টুন
এই কার্টুনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিব্রত  © টিডিসি ফটো

আবাসিক হল খুলে দেয়ার দাবিতে গত মাসের ১৯ তারিখে রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) আন্দোলন হয়। এসময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. হারুন-উর-রশিদ তাদেরকে বিএনপি, জামায়াত-শিবির বলে আখ্যা দেন। খবরটি দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়।

ওই ঘটনার পরদিন আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও প্রশাসনের কথোপকথন সম্বলিত একটি কার্টুন অংকন করে সেটা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ও কার্টুনিস্ট ফারহা তাহসিন। তিনি শেকৃবি আর্ট সোসাইটির কার্যনির্বাহী সদস্যও। এরপর ওই সংগঠন থেকে তাহসিনকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। যেখানে উল্লেখ করা হয়, তার অংকিত কার্টুনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিব্রত। তাই সংগঠনের ভবিষ্যৎ কর্মকাণ্ডের কথা বিবেচনা করে তাকে তার পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হলো।

এ ব্যপারে কার্টুনিস্ট ফারহা তাহসিন বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও প্রশাসনের কথোপকথন বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এরপর আমি কার্টুনটি এঁকে আমার ফেসবুকে পোস্ট করি। কার্টুনটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িলে পড়লে ২০ সেপ্টেস্বর সংগঠন থেকে আমাকে তিন দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। উল্লেখিত সময়ের মধ্যে আমি যথাযথ কারণ উল্লেখ করে সংগঠনের কাছে আমার জবাব পাঠাই। তারপরও আমাকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এই আর্ট ক্লাবের স্লোগানে আছে ‘স্বাধীনতা’। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্ট সোসাইটির আমাকে আমার পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে। কারণ আমি প্রশাসনকে কার্টুন এঁকে বিব্রত করেছি। সংগঠন তার আর্টিস্টের পক্ষে না থেকে আমার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়েছে। সংগঠনের কাছ থেকে কোন সাহায্য না পেলে আর্টিস্টরা সংগঠনে কেন যাবে?

জানতে চাইলে ক্লাবটির সভাপতি জাহান রিপা বলেন, সংগঠন কারো ব্যক্তিগত কর্মকান্ডের দায় নেবে না। সংগঠনের ভবিষ্যৎ কর্মকান্ডের কথা বিবেচনা করে সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। কার্টুন অংকনের ব্যপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন চাপ ছিল কিনা জিজ্ঞাসা করলে তিনি এব্যপারে কোন মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানান।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ড. ফরহাদ হোসেন বলেন, আমি মনে করি কেউ যদি প্রশাসনকে ব্যঙ্গ করে কোন কার্টুন অংকন করে বা লেখালেখি করে তবে তাকে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা যেতে পারে। কিন্তু কোনো সংগঠন থেকে কাউকে অব্যাহতি দেওয়াটা সেই সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক বা আহ্ববায়কের অধীনে। এব্যপারে প্রশাসনের কোন সম্পৃক্ততা নেই।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ

x