গুচ্ছের বিজ্ঞানের ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রক্রিয়া যেভাবে

গুচ্ছের বিজ্ঞানের ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রক্রিয়া যেভাবে
গুচ্ছের বিজ্ঞানের ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রক্রিয়া যেভাবে  © ফাইল ফটো

গুচ্ছভুক্ত ২০টি সাধারণ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার বিজ্ঞান বিভাগের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এ ফলের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে। ভর্তি প্রক্রিয়ায় গড় নম্বরের চেয়ে বিষয়ভিত্তিক নম্বরে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এ ভর্তি পরীক্ষার সর্বোচ্চ নম্বর ৯৫। তবে অধিকাংশ শিক্ষার্থীর নম্বর ৫০-এর নিচে। গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় গড় নম্বর দেখে ভর্তির সুযোগ কম। এতে ভর্তির ক্ষেত্রে ইন্ডিভিজ্যুয়াল সাবজেক্টের মার্ক কাউন্ট করবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

এ বিষয়ে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার টেকনিক্যাল সাব-কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ বলেন, যেহেতু কিছু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমন্বয়ে এ গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা হয়েছে; সেক্ষেত্রে সব বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীর চাহিদা থাকবে না। দেখা গেছে, বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পদার্থবিদ্যা-রসায়নের মত বিষয়গুলোর নম্বরকে প্রাধান্য দিয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি নেবে।

তিনি বলেন, আবার কেউ কেউ (সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়) বাংলা-ইংরেজির নম্বরকে গুরুত্ব দেবে। ভর্তি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের বিষয়ভিত্তিক প্রাপ্ত নম্বর এবং নির্দিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের আসন সংখ্যা অনুযায়ী একজন শিক্ষার্থী ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির জন্য যোগ্য হবেন। এক্ষেত্রে ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের সঙ্গে এসএসসি এবং এইচএসসির নম্বর যোগ হবে।

এর আগে, আজ বুধবার (২০ অক্টোবর) বিকেল ৫টায় গুচ্ছভুক্ত ২০টি সাধারণ ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। গত ১৭ অক্টোবর সারাদেশে ২৬টি কেন্দ্রে একযোগে গুচ্ছভুক্ত ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

‘ক’ ইউনিটের অধীনে ইংরেজি, বাংলা, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন, (ঐচ্ছিক ৩টি) গণিত, জীববিদ্যা এবং আইসিটি বিষয়ে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। অধ্যাপক মুনাজ আহমেদ বলেন, এ পর্যায়ের প্রক্রিয়া নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ‍গৃহীত হবে। ধাপে ধাপে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এসব বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানাবে।

তিনি বলেন, যেমন আমাদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ে পদার্থবিদ্যা, রসায়ন এবং গণিতকে ফোকাস করবে। ইতিমধ্যে আমাদের এ বিষয়টি পর্যালোচনায় চলছে। আমরা পরবর্তী একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এটা নিয়ে আলোচনা করবো।

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য অনুষদের জন্য তিনটি আলাদা পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের প্রাপ্ত নম্বর জানিয়ে দিচ্ছি। প্রকাশিত ফলের উপর ভিত্তি করে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের ওয়েবসাইটে ভর্তি নীতিমালা প্রকাশ করবে।

২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আছে: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।


মন্তব্য

x

সর্বশেষ সংবাদ