করোনার মধ্যেই কাল থেকে কলেজে মূল্যায়ন পরীক্ষা, বকেয়া পরিশোধের ‍নির্দেশ

ক্যাম্পাস
কলেজ ক্যাম্পাস ও রুটিন  © সংগৃহিত

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে সরকারি আদেশ অমান্য করে কলেজ ক্যাম্পাসে সশরীরে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির মূল্যায়ন পরীক্ষা গ্রহণের জন্য রুটিন প্রকাশ করেছে নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া সেন্ট যোসেফস স্কুল অ্যান্ড কলেজ শাখা। এজন্য কলেজের সব বকেয়া বেতন পরিশোধ করে প্রবেশপত্র গ্রহণের নোটিশ জারি করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ।

কলেজের রুটিন অনুযায়ী, একাদশ শ্রেণির মূল্যায়ন পরীক্ষা আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৬ মে) থেকে শুরু হয়ে চলবে ২৮ মে পর্যন্ত। আর দ্বাদশ শ্রেণির মূল্যায়ন পরীক্ষা শুক্রবার (৭ মে) শুরু হয়ে চলবে ২৯ মে পর্যন্ত।

পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য সব শিক্ষার্থীদের তাদের বকেয়া বেতন সম্পূর্ণ পরিশোধ করে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করার নির্দেশ দিয়ে নোটিশ জারি করা হয়েছে।

জানা যায়, কলেজের শিক্ষার্থীদের মাসিক বেতন ৬৮০ টাকা। অধিকাংশ শিক্ষার্থীদেরই প্রায় ১২-১৪ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। সেই হিসাবে তাদের প্রত্যেককে পরীক্ষার আগে ৮ থেকে ৯ হাজার টাকা পরিশোধ করতে হবে।

এদিকে সরকারি আদেশ অমান্য করে কলেজ কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এসব বিষয়ে ইতোমধ্যে অনেক অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে একাধিক পোস্ট ও কমেন্ট করেছেন।

সজিব আহমেদ নামে কলেজের এক শিক্ষার্থী জানান, কোনো ক্লাস না নিয়ে স্যারেরা কিসের পরীক্ষা নিবেন আমাদের। এটাতো মানসিক চাপ সৃষ্টি করা ছাড়া আর কিছু না।

করোনা মহামারি ও লকডাউনের মধ্যে শুধু বেতন ও পরীক্ষার ফি হাতিয়ে নিতেই এ পরীক্ষার আয়োজন করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৫-৬ জন ছাত্রের অভিভাবক জানান, করোনা মহামারি ও লকডাউনের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য প্রায় বন্ধ, আয় রোজগার নেই বললেই চলে। এর মধ্যে এতোগুলো টাকা কিভাবে দেব। আর সারা বছর কোনো ক্লাস হয়নি, অথচ স্যারেরা কোনো ছাড় না দিয়ে পুরো বেতন আদায় করছেন-এটা কতটুকু যৌক্তিক।

কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তেই পরীক্ষার নোটিশ জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেন্ট যোসেফস স্কুল অ্যান্ড কলেজের কলেজ শাখার পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মুহা. নাজমুল হোসাইন।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ